“বিএসএনএল” কর্মীরা সব দেশদ্রোহী, ৮৮হাজার কর্মচারী কে তাড়িয়ে বেসরকারীকরণ হবে, বেফাঁস বিজেপি সংসদ

বিএসএনএল অর্থাৎ রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিকম সংস্থা ভারত সঞ্চার নিগম লিমিটেড কর্মীদের “দে’শ’দ্রোহী” “বিশ্বা’সঘা’তক” বলে মন্তব্য করলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা কর্ণাটকের বিজেপি সাংসদ অনন্তকুমার হেগড়ে। বিএসএনএলের ৮৫ হাজার কর্মীকে বরখাস্ত করা হবে বলে হু’মকি দিলেন তিনি। বিজেপি সাংসদ অনন্তকুমার হেগড়ের এই মন্তব্যে তীব্র বিতর্ক তৈরি হয়েছে৷

কর্নাটকের কুমতায় একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে প্রাক্তন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী ও বিজেপি সাংসদ অনন্তকুমার হেগড়ে বলেন, “কেন্দ্রীয় সরকার বিএসএনএল-এর কর্মীদের সব সুবিধা দিচ্ছে। এমনকী বাজারও তৈরি করে দিচ্ছে। কিন্তু সমস্ত সুযোগ সুবিধা নিয়েও ওই কর্মীরা দেশের সঙ্গে বিশ্বা’সঘাত’কতা করছে। ওরা দে’শ’দ্রোহী। ওই ৮৮ হাজার কর্মীকে তাড়িয়ে দিয়ে বিএসএনএল-কে বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়া হবে!”

গত বছরের ৪ নভেম্বর থেকে চরম দুঃসময় নেমে এসেছিল বিএসএনএল কর্মীদের জীবনে। স্বেচ্ছাবসর ঘোষণার প্রকল্প শুরুর ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই প্রায় ২২ হাজার আবেদন জমা পড়েছিল। এর থেকে একমাস পর ৭৮৫৬৯ জন বিএসএনএল কর্মী স্বেচ্ছা অবসরের জন্য আবেদন জমা করেন।

দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর কেন্দ্রীয় সরকার দেশের সংকটময় মুহূর্তে সরকারি বেশকিছু দপ্তরের বেসরকারীকরণ এর জন্য চিন্তা ভাবনা করেছেন। তার দলের সাংসদ এবার বিএসএনএল কর্মীদের দে’শদ্রো’হী আখ্যা দিলেন। এরপর তিনি আরও বলেন, “এটা দেশের একটা কলঙ্ক। তাই আমরা বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে বিএসএনএল বন্ধ করে দিতে চলেছি। বেসরকারি সংস্থার মাধ্যমে বিএসএনএল-এর পরিষেবা বদলে ফেলার সময় চলে এসেছে।

আমরা বিএসএনএল-কে শোধরাতে পারব না। বিএসএনএল-এর পুরো ব্যবস্থা এতটাই দু’র্নী’তিগ্রস্ত যে বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকারও শোধরাতে পারছে না। দে’শদ্রো’হীতে বিএসএনএল ভরে গেছে। প্রত্যেক আধিকারিক ও কর্মী দে’শদ্রো’হী।”

বিজেপির সংসদের এই বক্তব্য প্রকাশ্যে আসতেই মুখ খুলেছেন বিরোধীরা। এই মন্তব্যের পরে তীব্র নিন্দায় সরব হয়েছে কংগ্রেস৷ কংগ্রেসের বক্তব্য, অনন্তকুমার হেগড়ে তো একটার কথা বলেছেন৷ এই সরকার এতটাই ব্যর্থ যে, একে একে সবই বেসরকারি হাতে তুলে দেবে৷

Reply