আগামী বছরে প্রত্যেক দেশবাসীকে ই-পাসপোর্ট দেওয়ার পরিকল্পনা কেন্দ্রের

এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল আগের বছরই, কিন্তু এবার সেটাকেই বাস্তবায়িত করার সময় এসে গেছে। এবার ই পাসপোর্ট ইস্যু করার সময় এসে গেছে। কেন্দ্রীয় সরকার সমস্ত নাগরিকদের ই পাসপোর্ট দেওয়ার ইস্যু পরিকল্পনা করেছিল আগের বছরই। এবার সেই কারণেই বিভিন্ন এ’জে’ন্সিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এর জন্য তৈরী করা হবে আই টি পরিকাঠামো। এই ই পাসপোর্ট মানুষের থাকলে অনেক দিক থেকেই সুবিধা সম্ভব, কারণ এটি যেমন জাল করা সহজ হবে না, সাথে অভিবাসনেও কোনো অসুবিধা হবে না।

এবার থেকে নতুন নিয়ম এটাই যাদের কাছে আগের থেকেই পাসপোর্ট আছে, তারা যদি ২০২১ এর নতুন পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেন, তাহলে তাদের ইলেকট্রনিক মাইক্রোপ্রসেসর চিপ সহ ই মিলবে পাসপোর্ট। আসলে এর আগেই এই নিয়ে সরকার অনেকটাই মাথা ঘামিয়েছে, যার ফলে কূটনৈতিকগত ভাবে ২০ হাজার ই পাসপোর্ট বানিয়েছিল ভারত সরকার। এবার সেখানে ইতিবাচক ফল পাওয়ার পরেই সমস্ত মানুষের জন্যই বানানো হবে ই পাসপোর্ট।

এখন শুধু অপেক্ষা এ’জে’ন্সি নির্বাচন ও উপযুক্ত পরিকাঠামো। সব কিছু ঠিক থাকলেই কাজ শুরু করে দেওয়া হবে। এই পাসপোর্ট নতুন ভাবে গড়ে তোলা হবে। যার ফলে জাল হওয়ার কোনো আ’শ’ঙ্কা থাকবে না। একেবারে পা’র্সো’নালাইজেশন করা থাকবে পাসপোর্ট। দেশের মোট ৩৬ টি পা’স্পো’র্ট অফিসে ই পাসপোর্টের কাজ শুরু করে দেওয়া হবে, তবে প্রথমে চেন্নাই ও দিল্লিতে কাজ শুরু করা হবে।

Reply