সংসার চালানোর টাকা পর্যন্ত নেই, অটোতে টাকা ভর্তি ব্যাগ পেয়েও তা যাত্রীকে ফেরত দিলেন অটোচালক

মানবিকতাবোধ সমাজের বুক থেকে একেবারেই হারিয়ে যায়নি। আজও রাস্তাঘাটে অনেক সময় বেশ কিছু মানবিক মুখের ছবি আজও দেখা যায়। শুধুমাত্র মানবিকতার খাতিরে আগেপিছু না ভেবেই একজন মানুষ হয়ে অন্য একজন মানুষের উপকার করেন তারা। তেমনি এক অনন্য উদাহরণ গড়লেন হায়দ্রাবাদের এক অটোরিকশা চালক।

আ’র্থিক স’ম’স্যায় জ’র্জরিত জীবন, হাটে বাজারে দেনা। তারি সঙ্গে জুড়ে গিয়েছে বাড়ি ভাড়া সহ সংসার খরচ। এতদিন ধরে তা সামাল দিতে দিতে প্রাণ ওষ্ঠাগত। কিন্তু তাই বলে ন্যায়-নীতি বিসর্জন দিতে রাজি নন হায়দ্রাবাদের অটোরিকশাচালক হাবিব। এক যাত্রীর টাকা ভর্তি ব্যাগ পেয়েও তা ফিরিয়ে দিতে দুবার ভাবেননি তিনি। ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা ছিল ওই ব্যাগে।

সূত্র মারফত খবর, আয়েষা নামে এক মহিলা সিদ্দিয়াম্বের বাজার এলাকায় অটো থেকে নামেন। অটোতে ওঠার সময় থেকেই তার কাছে একটি ব্যাগ ছিল। কিন্তু ভুলবশত অটো থেকে নামতে গিয়ে তাড়াহুড়োর ফলে ব্যাগটি নিতে ভুলে যান তিনি। অটোচালক হাবিব ওই ব্যাগ দিয়ে কি করবেন তা বুঝতে না পেরে স্থানীয় পুলিশ স্টেশনে গিয়ে জমা দেওয়ার কথা ভাবেন।

পুলিশ স্টেশনে পৌঁছে গিয়ে ওই মহিলার সঙ্গে সাক্ষাৎ হয় হাবিবের। দেখামাত্রই দুজন দুজনকে চিনতে পারেন। অবশেষে থানায় হারিয়ে যাওয়া ব্যাগ খুঁজে পাওয়া নিয়ে কোনো ডায়েরি লেখাতে হয়নি আয়েষা নামক ওই মহিলাকে। হাবিব ব্যাগ ফেরত দিয়ে দেন আয়েষাকে। হাবিবের মানবিকতার এমন নজির দেখে খুশি হয়ে তিনি পাঁচ হাজার টাকা উপহার স্বরূপ দেন হাবিবকে।

সাধারণ এক অটোচালক হাবিবের ন্যায় পরায়ণতা খুশি হয়ে থানা থেকে তাঁকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সংবর্ধনা স্বরূপ একটি সাল এবং মালা দিয়ে তাকে সম্মান জানানো হয় এই কৃতকর্মের জন্য। সংবাদমাধ্যমে ওই অটোচালক জানিয়েছেন, বর্তমানে সং’ক্রম’ণের ভয়ে অটোতে উঠতে চান না কেউ।

সামাজিক দূরত্ব মানতে গিয়ে কোন যাত্রী নিয়ে চালাতে হচ্ছে অটো। সারা দিনে ২০০-২৫০ টাকা আয় করতেই ঘাম ছুটে যাচ্ছে। এদিকে তার ব্যক্তিগত অবস্থাও খুব একটা ভালো নয়। চারি দিক বিচার করে এমন অচলাবস্থায় লক্ষাধিক টাকার ব্যাগ ফিরিয়ে দেওয়ার নজির দেখে তার প্রশংসা করেছেন সেখানে উপস্থিত জনসাধারণ।

Reply