বিনামূল্যে গরিবদের কাছে করোনা টিকা পৌঁছে দেওয়ার জন্য, ১৫০ মিলিয়ন ডলার দান বিল গেটসের

গরিবের ত্রাতা হিসেবে বিল গেটস প্রায়ই তার নাম রেখেছে। মাইক্রোসফট -এর অধিকর্তা নিজেও ছোট বয়সে খুব আর্থিক দুরাবস্থার সাথে বড় হয়েছেন। আবারো তিনি নজির গড়লেন,করোনা টিকা যাতে সব গরিব মানুষদের কাছে পৌঁছে যায় তার জন্য ১৫০ মিলিয়ন ডলার খরচ করার কথা জানালেন মাইক্রোসফ্ট কর্তা বিল গেটস। এই মার্কিন ডলার বিল গেটস এবং মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটকে দান করতে ইচ্ছুক, যাতে মানুষ মাত্র ৩ ডলার খরচ করেই করোনার টিকা নিতে পারে। বিল গেটস জানিয়েছেন, “করোনার টিকা আবিষ্কৃত হলেও উন্নত দেশগুলি সহজেই মানুষের প্রাণ বাঁচাতে পারবে। কিন্তু প্রবল ভাবে আর্থিক দিক থেকে সমস্যায় পড়বে বিশ্বের গরিব দেশগুলি। তাই করোনার টিকা আবিষ্কৃত হলে তা যেন সকলেই পায় তার লক্ষ্য রাখাই আমাদের দায়িত্ব”।

এই মুহূর্তে বিশ্বের প্রায় অনেক দেশই করোনা টিকা আবিষ্কারের চেষ্টা চালাচ্ছেন। আবার অন্যদিকে, রাশিয়া করোনা টিকা আবিষ্কার করে ফেলেছে এমনটাই দাবি করেছে। করোনা টিকা হিসেবে এগিয়ে থাকা অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও নোভাভাক্স টিকা দুটি সাধারণ মানুষের সাধ্যের মধ্যে আনতে চায় ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট। এই টিকা তৈরিতেই টাকা দিতে চায় বলে জানিয়েছেন মাইক্রোসফ্ট কর্তা বিল গেটস। এর মধ্যেই সেরাম ইনস্টিটিউট জানিয়েছে, তারা করোনার টিকা ভারতসহ সমস্ত উন্নয়নশীল দেশগুলিতে উৎপাদন ও বিক্রির জন্য ৩ ডলারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখবে।

মিডিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বিল গেটস জানিয়েছেন, আগামী বছরের মধ্যেই বেশ অনেক দেশ থেকে বিদায় নেবে করোনা ভাইরাস। ভ্যাকসিন আবিষ্কার হয়ে গেলে ২০২২ সালের মধ্যে পৃথিবী থেকেও বিদায় নেবে এই ভাইরাস। উল্লেখ্য, এর আগে বিল গেটস করণা টিকা তৈরি ও বিক্রি করার জন্য গাভী কোম্পানিতে ১০০ মিলিয়ন ডলার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এ ছাড়াও একাধিক ভাবে করোনার টিকা আবিষ্কার হলে তা গরীবদের মধ্যে সহজেই পৌঁছে দেওয়ার জন্য ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন তিনি। মানবদরদী বিল গেটসের সাহায্যার্থে ভারত কবে করোনা টিকা আবিষ্কার করতে পারে, সেই দিকেই তাকিয়ে আপামর ভারতবাসী সহ বিশ্ব।

Reply