নিখুঁত নিশানায় শ’ত্রুকে ধ্বংস করতে সক্ষম, সীমান্তে মোতায়েন বি’ধ্বংসী ‘নাগ’ মি’সা’ই’ল

ভারত যে চিনের সাথে সীমান্তের ঝা’মেলার পরেই, সামরিক অ-স্ত্র ভান্ডার বৃদ্ধি করা শুরু করেছে সেটা স্পষ্ট। কিছুদিন আগেই ফ্রান্স থেকে নিয়ে আসা হয়েছে রাফাল, এদিকে রাশিয়া থেকে নিয়ে আসা হচ্ছে এস-৪০০। ইতিমধ্যে হ্যালের তরফ থেকে তৈরী করা যু-দ্ধ কপ্টারও তুলে দেওয়া হয়েছে বায়ুসেনার হাতে। কিন্তু এখানেই শেষনা, কারণ এবার ভারত, চিন ও পাকিস্তানকে শিক্ষা দেওয়ার জন্যই ‘নাগ’ দংশনের ব্যবস্থা করছে।

এবারের ক্ষে’প’ণা’স্ত্র একেবারে সাপের মতোই বিষধর। যে কোনো পরিবেশের জন্য, যেকোনো আবহাওয়ার জন্য এটিকে ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি আসলে ভারতের তৃতীয় প্রজন্মের ক্ষে’প’ণা’স্ত্র। নিখুঁত ভাবে খুব সহজেই এটি শ’ত্রু’পক্ষের ওপরে হা’ম’লা চালাতে সক্ষম।

এই মি’সা’ই’লের খবর অনেক আগের থেকেই কানে আসছিল, এবার এই মি’সা’ই’লটিকে স্বাধীনতা দিবসের আগের দিন ১৪ আগস্ট প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং উন্মোচন করেন। আর সেখানেই তিনি কিছু বক্তব্য রাখেন, যা শত্রু দেশকে নাম না করেই হুঁ’শি’য়া’র, সেটা স্পষ্ট বোঝা গেছে। এখন এই সীমান্ত ল’ড়া’ই এর কারণেই যে এর উন্মোচন, সেটা বিশেষজ্ঞ দল মনে করছে। এটি আসলে এল ও সি রক্ষা করতে দারুণ ভাবে সক্ষম।

Reply