ফের ডানা ছাঁটা হল শুভেন্দুর, ক্ষোভে ফুঁসছে অনুগামীরা

রাজ্য কর্মচারী ফেডারেশনের মেন্টর পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হল মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীকে। তাঁর জায়গায় আনা হল দিব্যেন্দু রায়কে। শীর্ষ নেতৃত্বের এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ শুভেন্দুর অনুগামীরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন তাঁরা।

সম্প্রতি দলে সাংগঠনিক রদবদলে তৃণমূলের পর্যবেক্ষক পদ বাতিল হয়ে গিয়েছিল। ফলে শুভেন্দু অধিকারীর গুরুত্ব খানিক খর্ব হয়েছিল। এবার রাজ্য কর্মচারী ফেডারেশনের দায়িত্ব থেকেও তাঁকে সরানো হল। এবিষয়ে এখনও শুভেন্দু অধিকারীর প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

রাজনৈতিক মহলের একাংশ এই অপসারণের পিছনে অন্য গন্ধ পাচ্ছে। শুভেন্দুর বিজেপিতে যোগদান ঘিরে অনেকদিন ধরেই জল্পনা চলছে। এমনিতেই শুভেন্দুর সঙ্গে দলের মন কষাকষি চলছে দীর্ঘদিন। দলীয় কর্মসূচিতে তিনি অংশ নিচ্ছেন না। সরকারি অনুষ্ঠানেও থাকছেন না। তিনি সমান্তরাল জনসংযোগ করছেন বিশেষ অনুষ্ঠানের দিনে। বিশেষজ্ঞদের অনুমান, তৃণমূলের সঙ্গে পরিকল্পনা মাফিক দূরত্ব বাড়াচ্ছেন শুভেন্দু অধিকারী। তাঁর দায়িত্বে থাকা পরিবহণ মন্ত্রকের কাজও এখন দেখভাল করছেন দফতরের সচিব ও মুখ্যমন্ত্রী।

কিছুদিন আগে জেলার যুব তৃণমূল সভাপতির পদ থেকে শুভেন্দুর অনুগামী তথা ময়নার বিধায়ক সংগ্রাম কুমার দলুইকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, এটা নিয়ে ঘনিষ্ঠ মহলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন শুভেন্দু। এরই মধ্যে মেদিনীপুর জুড়ে ‘সমাজসেবী শুভেন্দু অধিকারী’-র নামে পোস্টার পড়েছে। তাতে তৃণমূলের নাম তো দূরের কথা প্রতীকও নেই। এর পরই শুভেন্দুর দলবদল নিয়ে নতুন করে শুরু হয়েছে জল্পনা। অনেকেরই প্রশ্ন, তাহলে কি তাঁর বিজেপিতে যাওয়া এখন সময়ের অপেক্ষা? এমনকি কয়েকদিন আগেই বিজেপিতে শুভেন্দুকে স্বাগত জানিয়েছেন দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তারপরই রাজ্য কর্মচারী ফেডারেশনের দায়িত্ব তাঁকে সরিয়ে দেওয়াটা যথেষ্ঠ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

Reply