আবেগময় ধোনি ! অবসর ঘোষণার দিন রাতে ভারতীয় দলের জার্সি পড়ে সারারাত কেঁদেছিলেন ধোনি

মহেন্দ্র সিং ধোনি, আমরা তাকে ক্যাপ্টেন কুল বলেও ডাকি কারন অনেক রকম চাপের পরিস্থিতি সে ঠান্ডা মাথায় নিজের দিকে ঘুরিয়ে জিতিয়ে এসেছে অসংখ্য গেম। ধোনি অসম্ভব সুন্দর ভাবে তার আবেগ কন্ট্রোল করতে পারেন, আর গুণীজনেরা বলেই গিয়েছেন যে আবেগ কন্ট্রোল করতে পারবে সে নিঃসন্দেহে সফল হবেই, মহেন্দ্র সিং ধোনি তারই এক দৃষ্টান্ত।

তবে ধোনি পত্নী সাক্ষী সিং বলেছিলেন ধোনিও বেশ আবেগী, রাগেন ও কিন্তু সকলের সামনে নয়। রবি চন্দ্র অশ্বিন জানালেন ধোনির এক আবেগময় দিক।

ধোনির রি’টা’ই’য়া’র’মে’ন্ট ঘোষণা করার এই পন্থা চিরদিনের। মাত্র 90 টা টেস্ট খেলে হটাৎ করেই টেস্ট ফরম্যাটকে জানিয়েছিলেন বিদায়। ভারতের অফ স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন বলেছেন, সম্প্রতি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে ধোনির অবসর নেওয়ার পর,২০১৪ সালে ধোনির টেস্ট ক্যারিয়ার অবসরের সময়ের আবেগময় মুহূর্তের কথা তুলে ধরলেন।

২০১৪ সালে ভারতের অস্ট্রেলিয়া সফরের সময় দ্বিতীয় টেস্টের পরে ধোনি বিখ্যাতভাবে একটি চমকপ্রদ পদক্ষেপে টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করেছিলেন। আশ্বিন বলেছেন, “২০১৪ সালে তিনি যখন টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছিলেন, তখন মেলবোর্নে ম্যাচ বাঁচানোর জন্য আমি তাঁর সাথে ব্যাটিং করছিলাম।

তবে আমরা হেরে গেলে, সে কেবল স্টাম্প তুলে নিল এবং চুপচাপ হয়ে গিয়েছিল তার পরেই সব শেষ করার সিদ্ধান্ত নেয় সে। এটি তাঁর জন্য খুবই আবেগময় মুহূর্ত ছিল। ইশান্ত শর্মা, সুরেশ রায়না এবং আমি সেদিন সন্ধ্যায় তার ঘরে ছিলাম। তিনি সেদিন পুরো রাত জুড়ে তার টেস্ট ম্যাচের জার্সি পরেছিলেন এবং অনেক কেঁদেছিলেন।”

সুরেশ রায়নাও জানিয়েছেন, ধোনি আর সে রিটাইয়ারমেন্ট ঘোষণা করার পর এক অপরকে জড়িয়ে ধরে কান্না করেন। চোখে জল আসারই কথা, এত বছর ভারতকে জগৎ সভায় যে জার্সি পরে রিপ্রেজেন্ট করে আসছেন সেই জার্সিকে চিরতরে বিদায় জানানো খুবই কষ্টের।

অসংখ্য মানুষ স্বপ্ন দেখেন দেশের হয়ে খেলার , দেশকে সম্মানের শীর্ষে পৌঁছনোর আর মহেন্দ্র সিং ধোনি সে সবই করেছেন আর তার খুব কাছের সঙ্গী ছিলেন সুরেশ রায়না। ধোনিও মানুষ আর দেশের সাথে আবেগ তো জড়িয়ে থাকবেই তাই চোখে জল আসাটা স্বাভাবিক।

Reply