‘আমি পদত্যাগ করতে প্রস্তুত’, সাফ জানালেন সোনিয়া গান্ধী

আমি পদত্যাগ করতে প্রস্তুত। কংগ্রেস নেতাদের চিঠির পর সাফ জানিয়েছেন সোনিয়া গান্ধী। সোমবারই কংগ্রেসের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক। আর তার আগেই দলের অন্দরে সোনিয়া এমনটা জানিয়েছেন বলে সূত্রের খবর।

কংগ্রেস নেতৃত্ব নিয়ে টানাপোড়েন হয়েছে আগেও। লোকসভা নির্বাচনের পর সভাপতির পদ ছেড়েছেন রাহুল গান্ধী। আর এরপরই এই পদে অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেন সোনিয়া।

সূত্রের খবর, কংগ্রেস নেতাদের চিঠির জবাবে তিনি বলেছেন, অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট পদে তাঁর এক বছর পূর্ণ হয়েছে। তাই এবার তিনি পদত্যাগ করতে চান। বদলে দলকে প্রেসিডেন্ট বেছে নিতে হবে।
সোমবার দলের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক হতে চলেছে। অনুমান করা হচ্ছে, সোনিয়া গান্ধী নিজে দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে কাউকে দায়িত্ব নেওয়ার কথা বলবেন।

যদিও এই দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন কংগ্রেস নেতা রণদীপ সিং সুরযেওয়ালা। তিন বলেন, সোনিয়া গান্ধী এই বিষয়ে দলের কোনও নেতার সঙ্গে এখনও কথা বলেননি। কোনও চিঠির জবাবও সোনিয়া দেননি বলে দাবি করেন তিনি।

জানা গিয়েছে, ২৩ জন কংগ্রেস নেতা চিঠি দিয়েছেন সোনিয়াকে। দলের নেতৃত্ব বদলের ডাক দিয়েছেন তিনি। এর মধ্যে রয়েছেন কংগ্রেসের পাঁচ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী, একাধিক কংগ্রেস কার্যকরী কমিটির সদস্য, বর্তমান সাংসদ ও প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের একাংশ সহ মোট ২৩ জন শীর্ষ স্থানীয় কংগ্রেস নেতা।

কার্যনির্বাহী সভাপতি হিসেবে গত একবছর ধরে দলের দায়িত্বভার সামলে আসছেন সোনিয়া। এবার তিনিও সভানেত্রীর পদ ছাড়তে চান ৷ রাহুল গান্ধী আগেই দলের প্রধান হওয়ার অনিচ্ছা প্রকাশ করেছেন ৷ এবারও তিনি কোনও আগ্রহ দেখাচ্ছেন না। সম্প্রতি শশী থারুর সহ শীর্ষ স্থানীয় কংগ্রেস নেতৃত্ব সর্বসম্মক্ষেই দাবি জানিয়ে আসছেন, রাহুল গান্ধী দলের অধ্যক্ষ পদ গ্রহণ না করলে দলের অন্দরে নির্বাচনের মাধ্যমে উপযুক্ত নেতা বেছে নেওয়া হোক ৷ এবার সংগঠনের মাথা থেকে তৃণমূলস্থরের সংস্কারেরও দাবি তুললেন কংগ্রেসের শীর্ষ নেতারাই ৷

কংগ্রেসের প্রবীণ প্রথমসারির নেতাদের মতে কংগ্রেস দলের প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থা ফিরিয়ে আনতে সংস্কার অবশ্যই প্রয়োজন ৷ একইসঙ্গে প্রয়োজন পূর্ণ সময়ের একজন নেতা৷। সোনিয়াকে লেখা চিঠিতে কংগ্রেসের ওই ২৩ শীর্ষ নেতা দলের বর্তমান কার্যনির্বাহী নেতৃত্বেই সংস্কার আনার আর্জি করেছেন ৷ তাঁদের দাবি, এমন নেতৃত্বকে বেছে নিতে হবে যে বা যাঁরা কাজের ক্ষেত্রে যাদের দৃঢ় ও উপযুক্ত ভূমিকা নিতে দেখা যাবে ৷

সোনিয়াকে দেওয়া চিঠিতে সাক্ষর করেছেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী আনন্দ শর্মা, কপিল সিব্বল, শশী থারুর, রাজ্যসভায় কংগ্রেস নেতা গুলাম নবী আজাদ, প্রাক্তন পিসিসি চিফ রাজ বব্বর, কউল সিং ঠাকুর, প্রাক্তন হরিয়ানা স্পিকার কুলদীপ শর্মা, সাংসদ সন্দীপ দীক্ষিত, মুকুল ওয়াসনিক, সাংসদ বিবেক তাঙ্কার মত নেতারা ৷

Reply