দ্বিপাক্ষিক আলোচনায় সীমান্ত সমস্যার সমাধান না হলে হবে সেনা অভিযান,চীনকে হুঁশিয়ারি বিপিনের

এবার ভারতের তরফে চরম হুঁশিয়ারি দেওয়া হল শি জিনপিংয়ের চীনকে। দ্বিপাক্ষিক আলোচনায় লাদাখের সীমান্ত সমস্যার সমাধান ব্যর্থ হলে ভারতের সামনে সেনা অভিযানের রাস্তা খোলা, চীনকে হুঁশিয়ারি দিলেন চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াত। তবে, দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে আলোচনা বর্তমানে কোন পর্যায়ে আছে তা নিয়ে মন্তব্য করতে রাজি হননি সেনা সর্বাধিনায়ক।

এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী, প্যাংগং সো লেকের ধারে ৫ নম্বর ফিঙ্গার পয়েন্ট পর্যন্ত মজবুত ঘাঁটি গেড়ে রয়েছে লালফৌজ। এখনও অবধি সেখান থেকে একচুলও সরার নামগন্ধ নেই। জুলাইয়ের শেষে পাওয়া উপগ্রহ চিত্র বিশ্লেষণ করে এই ছবিটাই সামনে এসেছে। বলা যেতে পারে, ভারতীয় সেনাবাহিনীর ধৈর্য্যের পরীক্ষা নিচ্ছে চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি। দেখা গিয়েছে, প্যাংগংয়ের ৫ ও ৬ নম্বর ফিঙ্গার পয়েন্টে সেনা সংখ্যা বাড়িয়েছে চীন। একইসঙ্গে স্থায়ী পরিকাঠামো তৈরি করা হয়েছে সেখানে। শুধু তাই নয়, উপগ্রহ ছবি বলছে, ওই এলাকায় সেনা আরও বাড়ানোর চেষ্টায় রয়েছে চৈনিকরা।

বেজিংয়ের দাবি, তাঁরা প্যাংগংয়ে, দেপসাংয়ে এখনও যতটা ঢুকে বসে রয়েছে সেটাই প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা। এর আগে একাধিক দফার আলোচনায় ভারত স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, চৈনিকদের নিজেদের এলাকায় ফিরে যেতে হবে এবং ওই এলাকাকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে দিতে হবে।

ভারতীয় সেনার তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, এপ্রিল মাসের স্থিতাবস্থা ফিরিয়ে না দিলে ভারতের পক্ষে চীনের কোনও শর্ত মানা সম্ভব নয়। কিন্তু এই হুমকিতেও চীনা সেনা সরতে নারাজ। এরই মধ্যে সেনা সর্বাধিনায়ক সাফ জানিয়ে দিলেন, প্রয়োজন পড়লে সেনা অভিযানেও নামতে পারে ভারত। সংবাদসংস্থা এএনআইকে চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ জানিয়েছেন, “লাদাখে চীনা আগ্রাসন প্রতিহত করতে সেনা অভিযানের বিকল্প খোলা আছে। তবে, সেটা কূটনৈতিক এবং সামরিক স্তরের আলোচনা ব্যর্থ হওয়ার পর।“

Reply