দেশে তৈরি ১.৪০ লক্ষ কোটির সামরিক সরঞ্জাম কিনবে কেন্দ্র: রাজনাথ

বড়সড় ঘোষণা কেন্দ্রের। স্বনির্ভর প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে আরও একধাপ এগোল ভারত। বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং জানিয়ে দিয়েছেন খুব তাড়াতাড়ি সম্পূর্ণ দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি সামরিক সরঞ্জাম কিনবে কেন্দ্র। যার আনুমানিক মূল্য ১.৪০ লক্ষ কোটি টাকা।

ঠিক করে এই সরঞ্জাম কেনা হবে, তা নিয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। তবে এই বিষয়ে শীঘ্রই সিদ্ধান্ত হবে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন। মোট ১০১টি সরঞ্জামের তালিকা তৈরি হয়েছে। কমব্যাট ভেহিক্যাল থেকে শুরু করে যু’ দ্ধে’ র নানা সরঞ্জাম কেনা হবে বলে জানানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন প্রতিরক্ষা খাতে ৭৪ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত।

রাজনাথ এদিন বলেন উত্তরপ্রদেশ ও তামিলনাড়ুতে প্রতিরক্ষা করিডর তৈরি করা হবে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী পাঁচটি আই-য়ের কথা বলেছেন। এগুলি হল ইনটেন্ট, ইনক্লুশন, ইনভেস্টমেন্ট, ইনফ্রাসস্ট্রাকচার ও ইনোভেশন।

প্রতিরক্ষামন্ত্রীর মতে ভারত প্রাচীন কাল থেকেই স্বয়ং সম্পূর্ণ। সেই কথাই মোদী মনে করিয়ে দিয়েছেন। ভারতের সমাজ, শিক্ষা, মূল্যবোধ থেকে নির্যাস গ্রহণ করেছে গোটা বিশ্ব। সেই প্রাচীন ঐতিহ্যই ফিরিয়ে আনা দরকার। তাই স্বনির্ভরতার পথে হাঁটবে ভারত।

কেন্দ্র জানিয়েছে এক বছরের মধ্যে তৈরি হবে অর্ডিন্যান্স ফ্যাক্টরি বোর্ড। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে তৈরি হবে ডিফেন্স ইন্ডাস্ট্রিয়াল করিডর। জানা গিয়েছে কিছু দিনের মধ্যেই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে এমন অস্ত্র ও অ’ স্ত্রে’ র সরঞ্জামের দ্বিতীয় তালিকা প্রকাশ করবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক।

দেশীয় কোম্পানিগুলিকে আরও উৎপাদনে উৎসাহ দেওয়া ও দেশকে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে স্বনির্ভর গড়ে তোলার লক্ষ্যেই এই সিদ্ধান্ত বলে খবর। এই বছরের শেষের দিকে দ্বিতীয় তালিকা প্রকাশ করা হবে বলে জানা গিয়েছে। দেশীয় কোম্পানিগুলি কি কি সরঞ্জাম তৈরি করতে প্রস্তুত, সেই বিষয়টি খতিয়ে দেখে এই তালিকা তৈরি করা হবে।

ইন্ডিয়া টুডেকে দেওয়া সাক্ষাতকারে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের এক উচ্চ পদস্থ আধিকারিক বলেন, এই তালিকা বেশ দীর্ঘ করতে চাইছে কেন্দ্র। সামরিক খাতে দেশকে আত্মনির্ভরতার পথে হাঁটানোই একমাত্র লক্ষ্য মোদী সরকারের। এই ধরণের আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা অ’ স্ত্রে’ র প্রথম তালিকা গত ৯ই অগাষ্ট প্রকাশ করে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক। এর মধ্যে ১০১টি পণ্যের নাম ছিল।

তথ্যসূত্র : kolkata24x7.com

Reply