ভারতের থেকে মি’ সা’ ই’ ল কিনবে চিনের ‘শ’ ত্রু’ দেশ, পাশে রাশিয়াও

চিনের সঙ্গে ভিয়েতনামের সম্পর্ক মোটেই ভালো না। এ অবস্থায় ভারতের সবচেয়ে বিপজ্জনক ক্ষে’ প’ ণা’ স্ত্র কিনতে চাইল ভিয়েতনাম। এক্ষেত্রে রাশিয়ার অনুমতির প্রয়োজন ছিল। কারণ রাশিয়া ও ভারত একত্রে এই মি’ সা’ ই’ ল তৈরি করেছে। তবে এবার অনুমতি মিলেছে রাশিয়ারও। ফলে ভারতের থেকে এই মি’ সা’ ই’ ল কিনতে আর বাধা রইল না ভিয়েতনামের। যদি ভারতের এই দুর্দান্ত মি’ সা’ ই’ ল ভিয়েতনামে মোতায়েন হয়, তবে নিঃসন্দেহে দক্ষিণ চিন সাগরে কিছুটা হলেও সতর্ক থাকতে হবে চিনকে।

ভারতের কাছে চাওয়া ভিয়েতনামের এই মিসাইলটি আসলে ব্রহ্মস। সম্প্রতি রাশিয়া এই মি’ সা’ ই’ ল’ টিকে তৃতীয় কোনও দেশকে দেওয়ার অনুমতি দিয়েছে।

ব্রহ্মস মি’ সা’ ইল প্রোজেক্টে রাশিয়াও ৫০% অংশীদার ছিল, সুতরাং এই ক্ষে’ পণা’ স্ত্র রফতানির জন্য রাশিয়ার অনুমতি প্রয়োজন ছিল। এমন সময়ে এই অনুমতি এসেছে, যখন ভিয়েতনাম ব্রহ্মস কেনার ব্যাপার আগ্রহ প্রকাশ করছে।

ভিয়েতনাম ভারতের থেকে ব্রহ্মস ও আকাশ এয়ার ডিফেন্স মি’ সা’ ইল নিতে চাইছে। যদি শেষ পর্যন্ত চুক্তি হয়, তবে ভিয়েতনাম এই দুটি মি’ সা’ ইলকে সুরক্ষার জন্য নিজের দেশে মোতায়েন করবে। এরফলে চিনা ভয় থেকে ভিয়েতনাম কিছুটা মুক্ত হবে। এছাড়াও ভিয়েতনামের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক আরও জোরদার হবে।

এর আগে ২০১৮ সালে তত্কালীন প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমণও বলেছিলেন, বিশ্বের অনেক দেশই ভারতীয় মিসাইল কিনতে ইচ্ছুক। তখনও এই তালিকায় ভিয়েতনামের নাম ছিল। পাশপাশি নির্মলা সীতারমণ জানিয়েছিলেন, সরকারও মি’ সা’ ইল মিত্র দেশগুলির কাছে বিক্রি করতে আগ্রহী।

অন্যদিকে এর আগে চিনও ভারতের প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান, বাংলাদেশ, মায়ানমার প্রভৃতি দেশে বহু ধরণের সংবেদনশীল অস্ত্র রফতানি করেছে। যা কিনা একসময় ভারতের চিন্তা বাড়িয়েছিল। তবে এখন আর তেমন কিছু হওয়ার না। এখন ক্রমেই এগিয়ে যাচ্ছে ভারত।

তথ্যসূত্র : kolkata24x7.com

Reply