মেসি বার্সেলোনাতে থাকলেই পদত্যাগ করবেন বার্তোমেউ…

পুরো ফুটবল বিশ্বে এখন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু, বার্সেলোনা ছাড়ছেন লিওনেল মেসি। আর এতেই তৈরি হয়েছে হাজারো প্রশ্ন।

কোন ক্লাবে যাবেন মেসি? বার্সেলোনা কি পদক্ষেপ নেবে মেসিকে আটকে রাখতে? এমন হাজারো প্রশ্নে জর্জরিত ফুটবল বিশ্ব।
অন্যদিকে আলোচনা হচ্ছে বার্সা প্রেসিডেস্ট জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউকে নিয়েও। অনেকে তার পদত্যাগের দাবি করছেন। তবে নতুন খবর হলো মেসি বার্সেলোনাতে থাকেলেই পদত্যাগ করবেন ক্লাব প্রেসিডেন্ট বার্তোমেউ। বৃহস্পতিবার (২৭ আগস্ট) স্প্যানিশ গণমাধ্যম টিভিথ্রি’র বরাত দিয়ে মার্কা নিশ্চিত করেছে বিষয়টি।

গণমাধ্যমটি আরও বলছে এখন মেসিকে ক্লাব ছাড়ার বিষয়ে ভাবতে হবে কিংবা চাপটা তার ওপরই থাকবে। লিওনেল মেসি বার্সেলোনা ছাড়ার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দিয়েছেন দু’দিন পার হয়ে গেছে। কিন্তু এখনও এ নিয়ে কোনো কথাই বলেননি বার্সেলোনা প্রেসিডেন্ট বার্তোমেউ। তবে বার্সেলোনার নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যানের সঙ্গে মেসির আলোচনাটা ফলপ্রসু হয়নি। ফলে বার্তোমেউ পদত্যাগ করলেও মেসি বার্সেলোনা থাকবেন কিনা সেটা নিয়েও প্রশ্ন থেকে যায়।

এর আগে গত মঙ্গলবার এক ব্যুরোফ্যাক্সের (প্রত্যায়িত পত্র) মাধ্যমে বার্সা ছাড়ার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দিয়েছেন মেসি। কোনো ঝামেলায় না জড়িয়ে বিনা ট্রান্সফার ফি’তেই ক্লাব ছাড়ার অনুমতি চেয়েছেন মেসি। বর্তমান চুক্তির শর্ত অনুযায়ী প্রতি মৌসুম শেষে ফ্রি এজেন্ট হিসেবে ক্লাব ছাড়ার সুযোগ আছে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের সামনে। তবে নিয়ম অনুযায়ী, এই ক্লজ কেবলমাত্র মৌসুম শেষের ২০ দিন আগে প্রযোজ্য হওয়ার কথা। অর্থাৎ গত ১০ জুন শেষ হয়ে গেছে এই সুযোগ।

কিন্তু করোনা মহামারির কারণে মৌসুম শেষ হতে আগস্ট মাসের প্রায় শেষ পর্যন্ত লেগে যায়। নতুন মৌসুমও শুরু হয়নি। ফলে মেসি এই যুক্তি দেখিয়েই ফ্রি এজেন্ট হিসেবে যেতে চাইছেন। এজন্য সময়মতো বুরোফ্যাক্স পাঠিয়েছেন যেন প্রমাণ হিসেবে দেখানো যায়। কিন্তু বার্সা চাইছে আগের ক্লজ অনুসরণ করতে। অর্থাৎ মেসিকে যেতে হলে রিলিজ ক্লজের ৭০০ মিলিয়ন পরিশোধ করতে হবে। তাদের যুক্তি, ২০২১ সাল পর্যন্ত মেয়াদ থাকা চুক্তি এরইমধ্যে কার্যকর হয়ে গেছে। এই নিয়েই এখন আইনি লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

এদিকে পরিস্থিতি ঠাণ্ডা করতে মাঠে নেমে পড়েছেন বার্সার নতুন ক্রীড়া পরিচালক র‍্যামন প্লানেস। তিনি দাবি করেছেন, মেসিকে ছাড়ার কোনো ইচ্ছাই নেই ক্লাবের। তাকে শান্ত করতে নাকি গোপনে তৎপরতাও চালানো হচ্ছে বলে দাবি তার। এই তৎপরতার মধ্যে আছে মেসির সঙ্গে ক্লাব প্রেসিডেন্টের মুখোমুখি বৈঠক। কিন্তু মেসি রাজি হচ্ছেন না। কারণ ক্লাব ছাড়ার সিদ্ধান্তের কথা তিনি কাগজে-কলমে জানিয়ে দিয়েছেন।

তবে রোববার (৩০ আগস্ট) বার্সার ট্রেনিং গ্রাউন্ডে যাবেন মেসি। সেখানে পিসিআর (কোভিড-১৯) টেস্ট করাবেন তিনি। শুধু তিনি একা নন, পুরো স্কোয়াড তাতে অংশ নেবে। পরদিন (৩১ আগস্ট) অনুশীলনে নেমে পড়বেন ৩৩ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড। রোনাল্ড কোম্যান বার্সার হেড কোচ হিসেবে যোগ দেওয়ার পর এটাই হতে যাচ্ছে তার অধীনে মেসিদের প্রথম অনুশীলন ক্যাম্প। মূলত চুক্তি নিয়ে ঝামেলা দূর হওয়ার আগ পর্যন্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতেই এই অনুশীলনে হাজির থাকবেন মেসি।

তথ্যসুত্রঃ banglanews24

Reply