এক দেশ, এক নির্বাচন’-এর দিকে দ্রুত এগোচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার

‘এক দেশ, এক নির্বাচন’-এর দিকে দ্রুত এগোচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর দফতরে ‘এক দেশ, এক নির্বাচন’ ইস্যুতে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়েছে। প্রতি ৫ বছরে লোকসভা, বিধানসভা, পঞ্চায়েত, পুরভোট আলাদা করে না-করে দেশজুড়ে একটি অভিন্ন নির্বাচন প্রক্রিয়া করতে চায় কেন্দ্রীয় সরকার।

‘এক দেশ, এক নির্বাচন’-এর দিকে দ্রুত এগোচ্ছে মোদী সরকার। সংবাদসংস্থা ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস-এর খবর অনুযায়ী, ১৩ অগাস্ট প্রধানমন্ত্রীর দফতরে ‘এক দেশ, এক নির্বাচন’ ইস্যুতে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়েছে।

গোটা দেশে একটিই নির্বাচন প্রক্রিয়া করতে তৎপরতা নেওয়া শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে এই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়েছে। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে গেরুয়া শিবিরের একাধিক প্রতিশ্রুতির অন্যতম ছিল ‘এক দেশ, এক নির্বাচন’।

এমনকী বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে কেন্দ্রে সরকারে আসার পরেই এবিষয়ে তাঁর ইচ্ছার কথা জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। দেশের সার্বিক উন্নতির স্বার্থেই ‘এক দেশ, এক নির্বাচন’ জরুরি বলে মনে করে ওয়াকিবহাল মহলের একটি বড় অংশ। প্রতি ৫ বছরে লোকসভা, বিধানসভা, পঞ্চায়েত, পুরভোট আলাদা করে না-করে একটি অভিন্ন ভোট দেশের পক্ষে হিতকর বলেই মনে করেন বিভিন্ন মহল।

দেশে একটিই ভোট হলে সময় ও নির্বাচনের বিপুল খরচ বাঁচবে। সেই টাকা জনগণের উন্নয়নের কাজে খরচ করা হলে আদতে তা দেশেরই কল্যাণ বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

তবে নির্বাচন কমিশনের প্রাক্তন কর্তাদের কথায়, এই কাজটি বেশ দুরূহ। ভারতবর্ষের মতো বিশাল দেশে বহু রাজনৈতিক দল রয়েছে। সব দলের সঙ্গে কথা বলে এব্যাপারে ঐক্যমত্যে পৌঁছনো সহজ কাজ নয় বলেই মনে করছেন নির্বাচন কমিশনের প্রাক্তন কর্তারা।

Reply