Wednesday , July 28 2021
Breaking News

চিন-পাকিস্তানের উপর নজরদারি বাড়াতে ইজরায়েলের ফ্যালকন এয়ারক্রাফট কিনছে ভারত

লাইন-অফ-অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলে চিনের সঙ্গে সংঘাতের মাঝেই সীমান্তে নজরদারিতে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে কেন্দ্র। ইজরায়েল থেকে আরও দু’টি ফ্যালকন ‘এয়ারবোর্ন আর্লি ওয়ার্নিং অ্যান্ড কন্ট্রোল সিস্টেম’ কেনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সূত্রের খবর, ১ বিলিয়ন ডলার খরচে ইজরায়েল থেকে শক্তিশালী ফ্যালকন কিনছে ভারতের বায়ুসেনা। চলতি সপ্তাহেই নিরাপত্তা বিষয়ক ক্যাবিনেট কমিটির বৈঠকে বড়সড় সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। চিনের ঔদ্ধত্য ঠেকাতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে।

ভারতীয় বায়ুসেনার হাতে বর্তমানে তিনটি ফ্যালকন রয়েছে। এই দুটি এলে মোট পাঁচটি পেয়ে প্রতিরক্ষাক্ষেত্রে আরও শক্তি বাড়াবে ভারতের বায়ুসেনা। রাশিয়ার তৈরি সামরিক পরিবহণ বিমানে আইএল-৭৬-এ বসানো এই ইজরায়েলি নজরদারি ব্যবস্থার কাজ হল, ভারতীয় বায়ুসেনার ফাইটার জেটগুলিকে নিখুঁত ভাবে চিহ্নিত করতে সাহায্য করা। পাশাপাশি, শত্রু’ পক্ষের বিমানবাহিনীর তৎপরতার উপর নজরদারির কাজও করতে পারে। বায়ুসেনা তাই একে বলে ‘আকাশের চোখ’।

দু’টি ফ্যালকনের পাশাপাশি সিসিএস আরও কিছু প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম কেনার ছাড়পত্র দিতে পারে। মোট খরচ প্রায় ২০০ কোটি ডলার যা প্রায় ১৪,৭৬৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে ইজরায়েলি নজরদারি ব্যবস্থার জন্য আনুমানিক খরচ ১০০ কোটি ডলারেরও যা প্রায় ৭,৩৮৩ কোটি টাকার বেশি।

পাকিস্তানের বালাকোটে জ’ ঙ্গি শিবিরে হামলাকারী ১২টি মিরাজ-২০০০ ফাইটার জেটকে সফলভাবে চালনা করেছিল একটি ইজরায়েলি ‘অ্যাওয়াকস’। ইজরায়েলি অ্য়াওয়াকসের পাশাপাশি বায়ুসেনা প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংস্থার (ডিআরডিও) দেশীয় প্রযুক্তিতে বানানো দুটি আগাম ওয়ার্নিং অ্য়ান্ড কন্ট্রোল সিস্টেমও ব্যবহার করছে।

২০১৮র অক্টোবরে ৫টি এস-৪০০ ডিফেন্স মি’ সা’ ইল সিস্টেম কেনার জন্য রাশিয়ার সঙ্গে ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের চুক্তি করে ভারত। গত বছর ভারত মি’ সাই’ ল সিস্টেমের জন্য প্রথম দফার দাম বাবদ প্রায় ৮০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার রাশিয়াকে দেয়।

এছাড়া ৪০টির বেশি সুখোই যু’ দ্ধ’ বিমানে ব্রহ্মোস সুপারসনিক ক্রুজ ক্ষে’ প’ ণা’ স্ত্র সংযুক্তিকরণের কাজও চলছে। সরকার পরিচালিত হিন্দুস্তান এয়ারোনোটকিস লিমিটেড ও রুশ-ভারত যৌথ উদ্যোগে গঠিত ব্রহ্মোস এয়ারোস্পেস প্রাইভেট লিমিটেড প্রকল্পটি কার্যকর করছে।

সীমানায় কৌশলী ভঙ্গিমায় কাজ চালিয়ে যেতে অর্থাৎ ভৌগলিক সীমানা না পেরিয়েও শত্রুপক্ষের যু’ দ্ধ’ বিমা’ ন, ক্ষে’ প’ ণা’ স্ত্র, সীমান্তের আশপাশে সেনাবাহিনীর আসা যাওয়ার ওপর নজরদারি চালাতে সক্ষম।

About M..

Check Also

চিন সীমান্তে ভারত আরও ৫০ হাজার সেনা মোতায়েন করেছে

চিন সীমান্তে মোতায়েন ২ লাখ ভারতীয় সেনা, আলোচনার মধ্যেই নজরদারি বাড়াচ্ছে নয়াদিল্লি

লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় ভারতীয় ও চিনা সেনার মধ্যে সংঘর্ষের পর থেকেই সীমান্তে উত্তাপ বেড়েছে। গত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *