নেপাল-ভুটান সীমান্তে নজরদারি বাড়াল ভারত

নতুন করে লাদাখ সীমান্তে উসকানিমূলক কাজ শুরু করেছে চিন। লাইন-অফ-কন্ট্রোলের ঘটনার মাঝেই নেপাল, ভুটান সীমান্তে নিশ্ছিদ্র নজরদারি শুরু করেছে ভারত। সীমান্ত এলাকায় ভারতীয় সেনাবাহিনীকে সতর্ক থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অগাস্টের শেষের দিক থেকে কমপক্ষে তিনবার ভারতে প্রবেশের চেষ্টা চালিয়েছে চিন। ভারতের দিকে এগিয়ে আসতে দেখা গিয়েছে অন্তত ৭ থেকে ৮ টি চিন সেনার হেভি ভেইকল। চিনের চেপুঞ্জি ক্যাম্প থেকে গাড়ি গু’ লি এগিয়ে আসছে বলে জানা গিয়েছে।

ভারতীয় সেনাবাহিনীও তৈরি রেখেছে। যে কোনও ধরনের অনু্প্রবেশ রুখতে সব ব্যবস্থা করে রাখা হয়েছে। চিনের কার্যকলাপে বিরক্ত ভারত। তাই সেনা মোতায়েন একধাক্কায় অনেকটা বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। বিতর্কিত জায়গার দখল ইতিমধ্যেই নিয়েছে ভারত।

মঙ্গলবার ফের উসকানিমূলক কাজে জড়িয়েছে চিন। চলছে মিলিটারিস্তরে আলোচনা। সেই বৈঠকেই চিনের সঙ্গে অন্যান্য সীমানায় নজরদারি বাড়াতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে। চিন, নেপাল, ভুটান নিয়ে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে জারি হয়েছে হাই অ্যালা’ র্ট।

সুত্রের খবর, ইন্দো-তিব্বতীয় বর্ডার পুলিশকেও এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। উত্তরাখন্ড, অরুণাচলপ্রদেশ, হিমাচলপ্রদেশ, লাদাখ এবং সিকিম, এমনক্কি ইন্দো-নেপাল এবং ভুটান সীমান্তে নজরদারিতে কর্মরত শসস্ত্র সীমা দলকেও সতর্ক করা হয়েছে। নজরদারি আরও বাড়াতে বলা হয়েছে।

বুধবারও মিলিটারিস্তরে আলোচনা হবে বলেই জানা গিয়েছে। প্যাংগং লেক নিয়ে ব্রিগেড কম্যান্ডারস্তরে বৈঠক চুশুল/ মল্ডোতে হবে, এমনটাই জানা গিয়েছে ভারতীয় সেনা সূত্রে। চিনের অনুপ্রবেশের চেষ্টা ব্যারথ করতে সফল হয়েছে ভারত। নতুন করে দুই দেশের চাপ বাড়ায় মিলিটারিস্তরে বৈঠক শুরু হয়েছে। সোমবার এবং মঙ্গলবার এই দু’দিনের আলোচনায় বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ কোনও ফলাফল আসেনি।

চিনের নতুন উসকানির চরম বিরোধিতা করে ভারতের পাশে দাঁড়িয়েছে আমেরিকা। আমেরিকান ইন্ট্যালিজ্যান্সের অ্যাসেসমেন্ট অনুযায়ী, চিন ইচ্ছাকৃতভাবে বারবার ভারতকে উসকানিমূলক কাজে জড়িয়েছে। আমেরিকাও লক্ষ্য করে জানিয়েছে, চিন দেশের ভেতর এবং বাইরে টানা আগ্রাসী মনোভাব দেখাচ্ছে। লাইন-অফ-কন্ট্রোলের পরিস্থিতিতে লক্ষ্য রাখছে আমেরিকা।

জানা গিয়েছে, প্যাংগং লেক ও বিতর্কিত এলাকা গোগরা হট স্প্রিংয়ে অপটিক্যাল ফাইবার কেবল লাগিয়েছে চিনা সেনা। সেখানে এই ৫জি নেটওয়ার্কের জন্য অগাষ্ট মাস ধরে কাজ করা হয়েছে। এই নিয়েই কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছে ভারত।

নয়াদিল্লি জানিয়ে দিয়েছে, যতক্ষণ না চিনা সেনা পুরোনো অবস্থানে ফিরে যাচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত কুগ্রাং নদীর তীরেই অবস্থান করবে ভারতীয় সেনা। এক পাও পিছু হটবে না তারা। প্রতিরক্ষা মন্ত্রক সূত্রে খবর প্যাংগং লেকে সুযোগ বুঝে এগিয়ে এসেছিল চিনা সেনা। জবাব দিয়েছে ভারতীয় সেনাও।

তবে চিন বারবার বলছে ‘এক ইঞ্চিও জায়গা অধিকার করেনি’। লাদাখ সীমান্ত কব্জা করতে না পেরে প্যাংগং লেক নিয়ে ঝামেলা করতে শুরু করেছে চিন। চিনের সঙ্গে র’ ক্ত’ ক্ষ’ য়ী সংঘা’ তে জুনের ১৫ তারিখ ভারতের সেনাবাহিনীর ২০ জন জওয়ান শ’ হি’ দ হয়েছিলেন।

Reply