বিজেপি করায় সারা শরীরে কা’মড় ও মা’রধর…

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বাড়ির সামনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে বাজার করতে যাচ্ছিলেন বিজেপির যুবকর্মী। আর সেই সময় তাঁকে আটকে মা’রধরের পাশাপাশি শরীরের একাধিক জায়গায় কা’মড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল কয়েকজন তৃণমূল কর্মীর বিরুদ্ধে। আ’হত বিজেপি (বিজেপি) কর্মীকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করান। তারপর কিছুটা সুস্থ হলে তিনি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রাম থানার বটগ্রামের ঘটনা। এই হা’মলার তীব্র নিন্দা করে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে সরব বিজেপি নেতৃত্ব।

আউশগ্রামের উক্তা অঞ্চলের বটগ্রামের বেড়াপাড়ার বাসিন্দা বাপন শেখ স্থানীয় এলাকায় বিজেপির নেতৃত্ব দেন। তিনি জানিয়েছেন, শনিবার সকালের দিকে তিনি তাঁর বাড়ির সামনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। তারপর বাইকে চড়ে বাজারে যাচ্ছিলেন। বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে তাঁকে আটকানো হয়। বাপন শেখের কথায়, ” গ্রামেরই বাসিন্দা মজাই শেখ, মণি শেখ-সহ জনাপাঁচেক তৃণমূল কর্মী আমাকে আটকায়। কেন বিজেপি করছি এই কৈফিয়ত চেয়ে ব্যাপক মা’রধর শুরু করে। আমার বুকে, হাতে ও গলায় কুকুরের মতো কা’মড়াতে থাকে। তারপর আমি জ্ঞান হারাই।”

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, স্থানীয় কয়েকজন বাপনকে উদ্ধার করেন। তাঁরাই বাপনকে হাসপাতালে নিয়ে যান। মা’রধর ও কা’মড়ে দেওয়ার ঘটনা লিখিতভাবে আউশগ্রাম থানায় জানিয়েছেন বাপন শেখ। বিজেপির আউশগ্রাম ৫৪ নম্বর মণ্ডল সম্পাদক সুদীপ্ত মুখোপাধ্যায় বলেন, “বাপন আমাদের সক্রিয় কর্মী। ওর নেতৃত্বে ওই এলাকায় তৃণমূল ছেড়ে আমাদের দলে অনেকে যোগ দিচ্ছেন। সেই আ’ক্রোশেই বাপনের উপর এমনভাবে হা’মলা চালানো হচ্ছে। আমরা পুলিশের কাছে দাবি জানিয়েছি যাতে অবিলম্বে অভিযুক্তদের গ্রে’প্তার করা হয়।” তবে হা’ম’লা’র অভিযোগ মানতে নারাজ স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

Reply