আর মাত্র ৬মাস, ক্ষমতায় এলে পুলিশকে দিয়ে পা চাটাবো, আবারো বিতর্কিত মন্তব্য বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের

শুক্রবার মেয়ো রোডে গাঁধী মূর্তির নিচে এবং রাজ্যের আরও ৮২টি জায়গায় জেলা বা মহকুমাশাসকের দফতরের সামনে “গণতন্ত্র বাঁচাও, বাংলা বাঁচাও” শীর্ষক অবস্থান-বি’ক্ষোভ করে বিজেপি।

রাজ্যে “গণতন্ত্র বাঁচানো” র কর্মসূচি থেকে রাজ্যপুলিশকে দিয়ে পা চাটানো থেকে শুরু করে তাদের বি’রুদ্ধে বিভিন্ন মামলা সাজানোর হু’মকি দিলেন বিজেপির শীর্ষস্থানীয় নেতারা।

আসানসোলের বিএনআরে রবীন্দ্র ভবনের সামনে বিজেপির জেলা কমিটির ডাকে শুক্রবার “গণতন্ত্র বাঁচাও” কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে যান রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়।

সেখান থেকে রাজ্যের শাসকদলসহ রাজ্য পুলিশ কে কটাক্ষ করে তিনি বলেন,”রাজ্যে কোনও গণতন্ত্র নেই। তৃ্ণমূল কংগ্রেসের নেতাদের কথায় পুলিশ চলছে। আমাদের দলের নেতা ও কর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দেওয়া হচ্ছে। আমরা ক্ষমতায় আসতে চলেছি। তখন এইসব কিছুর বদলা নেব।”

আসানসোল পুরনিগমের মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারিকেও তীব্র আ”ক্র’মণ শানিয়ে তিনি বলেন,”আসানসোলের মেয়র একজন মা’ফিয়া। ক্ষমতা থাকলে পুলিশ তাঁর বি’রুদ্ধে মামলা করুক। তাহলে পুলিশের হিম্মত আছে বুঝব। আমরা আর ৬ মাস পরে এই রাজ্যে ক্ষমতায় আসতে চলেছি।”

একই সঙ্গে “শোলে” সিনেমার ডাকাত সদস্য কালিয়ার সঙ্গে তুলনা করে বলেন, “অব তেরা কেয়া হোগা কালিয়া”? এদিন রাজ্য সরকারকে তীব্র ভাষায় আ”ক্র’মণ করে রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “এই খনি এলাকা থেকে অবৈধভাবে কয়লার পাচার হচ্ছে। তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা ও পুলিশের একাংশ এর পিছনে রয়েছে।”

শুধু পুলিশ নয়, পুলিশদের পরিবারের সদস্যদেরও ছাড়েননি তিনি। তিনি বলেন,”ক্ষমতায় এলে পুলিশের ছেলেদের বি’রু’দ্ধেও মিথ্যা মামলা দেওয়া হবে। যেমনটা হচ্ছে আমাদের বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে।

বিজেপি নেতার এই মন্তব্যে বিতর্কের ঝড় বইতে শুরু করেছে।” এদিন উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি লক্ষণ ঘড়ুই, রাজ্য যুবমোর্চার সম্পাদক বাপ্পা চট্টোপাধ্যায়, এসএন লম্বা, সুব্রত মিশ্র ও আসানসোল পুরনিগমের বিজেপি কাউন্সিলররা।

Reply