মোদির ভাষণের ভিডিওতে লাইক কম ডিসলাইক বেশি, এটা কংগ্রেসের ষড়যন্ত্র দাবি বিজেপির

গত সোমবার জাতীয় শিক্ষা নীতি নিয়ে একটি ভার্চুয়াল বৈঠকে ভাষণ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভিডিওটি লাইভ স্ট্রিম করা হচ্ছিল। ভিডিও চলাকালীন ভিডিওটিতে ১১০০০ মত লাইক পড়ে কিন্তু লাইক এর থেকেও বেশি ছিল ডিসলাইকের সংখ্যা ভিডিও।

শুরুর সাথে সাথে ভিডিওটিতে ১২০০০ ডিজলাইক পড়ে যায়। পরে অবশ্য বেশ কয়েক ঘণ্টা ধরে লাইক পড়ে কিন্তু সপ্তাহজুড়ে দেখা যায় লাইকের থেকে ডিজলাইক এর সংখ্যা অনেক বেশি। গত সপ্তাহে ফের দুবার মোদির ভাষণে লাইক এর তুলনায় ডিসলাইক এর সংখ্যা ক্রমাগত বাড়তে থাকে।

গত ৩০ অগাস্ট প্রধানমন্ত্রীর ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানের সময় লাইক পড়ে ২ লক্ষ ১১ হাজার। ডিসলাইক পড়ে ২ লক্ষ ৮৩ হাজার। এরপর নরেন্দ্র মোদী আইপিএস প্রবেশনারদের সমাবেশে ভাষণ দেন। সেখানেও এই ঘটনার ব্যতিক্রম হইনি বিচারকের সংখ্যা ছাড়িয়ে যায় লাইকের সংখ্যা কে।তাতে লাইক পড়ে ২৮ হাজার।

ডিসলাইক পড়ে ২৯ হাজার। লাইক এর তুলনায় ডিসলাইক বেশি পড়ার প্রবণতা প্রধানত নিট জয়েন্ট এন্ট্রান্স নিয়ে বির্তকের সৃষ্টি নিয়ে । নিট -জয়েন্ট এন্ট্রান্স এর অনেক ছাত্রী সরকারের কাছে দাবি করেছিল পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার জন্য কিন্তু সরকার তাদের আবেদন খারিজ করেছেন। সেখানেই ক্ষোভ পরীক্ষার্থীদের।

চলতি বছরে মোট ১০৫টি লাইভ স্ট্রিম করেন নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু মাত্র দুটো ভাষনেই ডিজলাইক এর সংখ্যা ছাপিয়ে গেছে লাইক কে। আর দুটো ভাষণই ছিল নিট জয়েন্ট এন্ট্রান্সের বিতর্ক নিয়ে। প্রধানমন্ত্রীর “মানকি বাত” অনুষ্ঠানে সবথেকে বেশি ডিজলাইক এর সংখ্যা। সেখানে অবশ্য প্রধানমন্ত্রী নিট জয়েন্ট এন্ট্রান্স নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি।

সাধারণত অফিসিয়াল নরেন্দ্র মোদী পেজ থেকে নরেন্দ্র মোদী যখন ভিডিও লাইভ স্ট্রিম করেন, তখন ডিসলাইকের চেয়ে লাইক পড়ে বেশি। অযোধ্যায় রামমন্দিরের ভূমি পূজনের সময় মোদীর ভাষণে ডিসলাইক পড়েছিল ২৬ হাজার। কিন্তু লাইক ছিল তার চাইতেও অনেকাংশে বেশি।

লাইভ স্ট্রিমটিতে লাইক পড়েছিল ১ লক্ষ ৫৮ হাজার। গত জুলাই মাসে প্রধানমন্ত্রীর “মন কি বাত” অনুষ্ঠানে ডিসলাইক পড়েছিল ২০ হাজার। লাইক পড়েছিল ৩৯ হাজার। গত সপ্তাহে ইউএস-ইন্ডিয়া স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপ প্রোগ্রামে মোদীর ভাষণে লাইক পড়েছিল ৩৫ হাজার। ডিসলাইক পড়েছিল ২৫ হাজার।

এবার সেই নিয়ে কংগ্রেসকে দুষলেন বিজেপি নেতৃত্বরা । বিজেপি বলেন,এত বেশি ডিসলাইক পড়ার পিছনে আছে কংগ্রেসের ষড়যন্ত্র। কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে বিজেপির অন্যতম মুখপাত্র বিজয় সোনকার শাস্ত্রী বলেন, “বেশিরভাগ ডিসলাইক পড়েছে ভারতের বাইরে থেকে।

এমনকি এমন দেশ থেকেও অনেকে ডিসলাইক দিয়েছেন যেখানে ভারতীয়দের কোনও অস্তিত্বই নেই”। এর আগেও বিজেপির আইটি সেলের ইনচার্জ অমিত মালব্য বলেন, “মন কি বাত অনুষ্ঠানে যতগুলি ডিসলাইক পড়েছে, তার মাত্র দুই শতাংশ পড়েছে ভারত থেকে। বাকি ডিসলাইকগুলি মেকি।” তিনিও এর পিছনে কংগ্রেসের ষড়যন্ত্র লক্ষ করেছেন।

Reply