‘বাংলা যেন দ্বিতীয় পাকিস্তান’, আবারো বিতর্কিত মন্তব্য বিজেপি নেতা অর্জুন সিং-এর

আবারও বে’ফাঁস মন্তব্য করে বসলেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং। দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিষ্ণুপুরে দলের মহিলা কর্মী গুলি’বি’দ্ধ হওয়ার ঘটনায় থানা ঘেরাও করার কর্মসূচি গ্রহণ করে বিজেপি নেতৃত্ব। এই কর্মসূচিতে যোগদান করেন অর্জুন সিং।

এই কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে এসে অর্জুন সিং বলেন,”বাংলার প্রতিটি কোনায় কোনায় বো’মা-পি*’স্ত’ল মজুত আছে। এই বাংলা দ্বিতীয় পাকিস্তান তৈরি হয়েছে। আমরা গণতান্ত্রিক ভাবে লড়াই করে বাংলায় ক্ষমতায় আসব।

বাংলায় এখন কোনও আইনশৃঙ্খলা বলে আর কিছু নেই। পিসি-ভাইপো’র কাছ থেকে আগেই আমরা ১৮টি আসন নিয়েছি। আগামী দিনে মানুষের আশীর্বাদ নিয়ে আমরা গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে বাংলা দখল করবই”।

এদিনের কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন বিজেপি সাংসদ অগ্নিমিত্রা পাল। তাঁর দাবি,”তৃণমূলে আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বিজেপি কর্মী রাধারানি নস্করের বাড়িতে ঢুকে হা’মলা চালায়। প্রতিবাদ করায় ওই মহিলার মাথার পেছনে গুলি করে দুষ্কৃতীরা।

বর্তমানে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি। মুখ‍্যমন্ত্রী মনে করেন এরাজ্যে বিজেপি করা পাপ। তাই নির্বাচন এগিয়ে আসতেই শাসকদলের পায়ের তলার মাটি ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে, তাই তারা খুন-সন্ত্রাস ও মিথ্যা মামলায় ফাঁ’সিয়ে দিচ্ছে বিজেপি নেতা-কর্মীদের”।

তিনি আরো বলেন,”পুলিশকে চাপ দিতে ৬জনকে গ্রেফতার করেছে। কিন্তু গু*লি চালনায় মূল অভিযুক্ত এখানকার বিধায়ক দিলীপ মণ্ডলের অনুগামী পঞ্চা নস্কর এখনও পলাতক। সে এখনও গ্রেফতার হয়নি। এর বিরুদ্ধে আমাদের আন্দোলন চলছে চলবে”।

এদিন মূল অভিযুক্ত গ্রেপ্তারের জন্য পথে নামে বিজেপি নেতৃত্ব। ১১৭ নম্বর জাতীয় সড়ক দীর্ঘক্ষন ধরে অবরোধ করে রাখা হয়। সোমবার সকালে বিষ্ণুপুর বিধানসভার চার নম্বর মণ্ডলের বিজেপির মহিলা মোর্চার কোষাধ্যক্ষ রাধারাণী নস্কর নিজের বাড়িতে গু*লিবি’দ্ধ হয়ে এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

ইতিমধ্যেই ছয় জনকে গ্রেফতার করে আলিপুর আদালতে পাঠানো হয়েছে। কিন্তু বিজেপির দাবি, যিনি মূল অভিযুক্ত তাকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। ডায়মন্ডহারবার সাংগঠনিক জেলার বিজেপি সভাপতি উমেশ দাস ও সহ-সভাপতি সুফল ঘাঁটু,রাজ্য বিজেপির সহ সভাপতি ও সাংসদ অর্জুন সিং, জেনারেল সেক্রেটারি ও জোনাল অবজার্ভার সঞ্জয় সিং, রাজ্য মহিলা মোর্চার সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল, বিজেপি নেতা গৌতম চৌধুরি সহ বিজেপি নেতৃত্ব এদিনের বিক্ষোভ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন।

Reply