মাত্র ২৩ বছর বয়সেই দেশের জন্য আ’ত্মব’লিদান! শ’হিদের মু’খা’গ্নি করল সাত মাসের ছেলে

বুধবার সকালেই ভূপেন্দ্রর দেহ গ্রামে নিয়ে আসা হয়। তার পর রাজকীয় সেনা সম্মানে তাঁর অ’ন্তে’ষ্টি’ক্রি’য়া সম্পন্ন হয়। মাত্র ২৩ বছর বয়স তাঁর। এই বয়সেই দেশের জন্য আত্বব’লিদান করলেন ভারতীয় সেনার জওয়ান ভূপেন্দ্র সিং। হরিয়ানার চরখি দাদরির বাসিন্দা ভূপেন্দ্র পাকিস্তানের কাপুরুষোচিত আ’ক্র’ম’ণে’র শিকার। নৌগাম ও পুঞ্চ এলাকায় পাকিস্তানের তরফে ফা’য়া’রিং-এ শহিদ হয়েছেন ভূপেন্দ্র।

বারবার দুই দেশের মধ্যে সীমান্তে সিজ ফা’য়া’র চুক্তি লঙ্ঘন করছে পাকিস্তান। পাক সেনার কাপুরুষের মতো গো’লা-গু’লি ব’র্ষণে প্রা’ণ হারাচ্ছেন ভারতীয় সেনার জওয়ানরা। তবে ভারতীয় সেনার তরফেও বারবার তাঁদের হা’ম’লা’র যোগ্য জবাব দেওয়া হচ্ছে।

বুধবার সকালেই ভূপেন্দ্রর দেহ গ্রামে নিয়ে আসা হয়। তার পর রাজকীয় সেনা সম্মানে তাঁর অ’ন্তে’ষ্টি’ক্রি’য়া সম্পন্ন হয়। ভূপেন্দ্রর সাত মাসের ছেলে মুখাগ্নি করেন। পরিবারের বড় ছেলেকে হারিয়ে শোকে ভেঙে পড়েছে প্রতিটি সদস্য। তবে ভূপেন্দ্রর স্ত্রী, ভাই ও বাবা গর্বিতও বটে। দেশের জন্য আত্ন’ব’লিদান দেওয়ার সুযোগ সবার হয় না। ভূপেন্দ্রর মৃ’ত্যু’তে শো’কের মধ্যেও তাঁই পরিজনরা গর্বিত বোধ করছেন। শে’ষযা’ত্রায় ভূপেন্দ্রর জন্য হাতজোর করে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করলেন গ্রামবাসীরা। বীর শহিদের সম্মানে শেষবিদায় জানানো হল দেশের সাহসী সেনা জওয়ানকে।

২০১৫ সালে ভারতীয় সেনায় যোগ দেন ভূপেন্দ্র। তখন তিনি বিএ প্রথম বর্ষের ছাত্র। গত তিন বছর ধরে তিনি বারামুলা সেক্টরে মোতায়েন ছিলেন। কিছুদিন আগেই মাসখানেকের ছুটিতে বাড়িতে এসেছিলেন ভূপেন্দ্র। তাঁর বাবা জানিয়েছেন, ১৮ মাস আগে ছেলের বিয়ে দিয়েছিলেন।

নাতির বয়স মাত্র সাত মাস। বাবার স্নেহ, ভালবাসা থেকে বঞ্চিত হতে হল ছোট্ট ছেলেকে। স্ত্রীর সঙ্গেও কটা দিনই বা সময় কাটাতে পারলেন ভূপেন্দ্র! তাঁর ছোট ভাই কলেজের ছাত্র। তিনিও সেনায় যোগ দিতে চান বলে জানিয়েছেন। আরও বলেছেন, দাদার মৃ’ত্যু তাঁর জেদ বাড়িয়ে দিয়েছে। সেনায় ভর্তি না হওয়া পর্যন্ত তিনি স্বস্তি পাবেন না।

Reply