প্রধানমন্ত্রী মোদীর জন্মদিনকে ‘জাতীয় বেকারত্ব দিবস’ হিসাবে পালনের ডাক রাহুল গান্ধীর…

বেকারত্বের বৃদ্ধির অভিযোগে ফের কেন্দ্রকে আক্রমণ কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর। তিনি কেন্দ্রের কাছে জানতে চান, আর কতদিন সরকার এই বিষয়টি অস্বীকার করবে। আজ টুইটে কেন্দ্রীয় সরকারকে আ’ ক্র’ মণ করেন রাহুল গান্ধী। একটি মিডিয়া রিপোর্টও টুইটে ট্যাগ করেন। যেখানে দাবি করা হয়েছে ১ কোটির বেশি মানুষ কাজের জন্য সরকারি পোর্টালে আবেদন করেছেন। কিন্তু মাত্র ১.৭৭ লক্ষ কর্মসংস্থান আছে।

বেকারত্ব যুবকদের প্রতিবাদ করতে বাধ্য করেছে
প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি টুইটে লেখেন, ‘বিশাল আকারে বেকারত্ব যুবকদের প্রতিবাদ করতে বাধ্য করেছে। কর্মসংস্থানই মর্যাদা। কতদিন সরকার এটাকে অগ্রাহ্য করবে?’ মোদী সরকারের অর্থনীতিরও সমালোচনা করেছেন রাহুল গান্ধি। এবং যুবকদের কাজ দেওয়ার জন্য সরকারের কাছে আবেদন করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জন্মদিন
প্রসঙ্গত, এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জন্মদিন উপলক্ষে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শুভেচ্ছা-বার্তা পাঠিয়েছেন বিশিষ্টরা। শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও অন্যরা। নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি ওলি-ও মোদিকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। সকালে মোদীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী নিজেও। দিল্লির প্রধানমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও শুভেচ্ছা জানান মোদীকে।

পরিযায়ী ইস্যুতেও মোদীকে একহাত রাহুলের
প্রসঙ্গত, দুইদিন আগেই বাদল অধিবেশনে পরিযায়ী শ্রমিকের মৃ’ ত্যু নিয়ে বিতর্ক ইস্যুতে মোদী সরকারকে এক হাত নিয়েছিলেন রাহুল। লকডাউনে ফেরার সময় যেসব পরিযায়ী শ্রমিকের মৃ’ ত্যু হয়েছিল, তাঁদের কোনও ক্ষ’ তিপূরণ দেওয়া হয়েছে কি না সেই বিষয়ে প্রশ্ন ওঠে লোকসভা অধিবেশনে। শ্রমমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়, পরিযায়ী শ্রমিকের মৃ’ ত্যু নিয়ে কোনও পরিসংখ্যান নেই। এরপরেই কেন্দ্রকে কটাক্ষ করেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী।

কেন্দ্রকে কটাক্ষ রাহুলের
টুইটারে রাহুল কেন্দ্রকে কটাক্ষ করে লেখেন, ‘মোদী সরকার জানে না লকডাউনে কতজন পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। কতজন চাকরি হারিয়েছেন। আপনি গোনেননি তাই কি মৃত্যু হয়নি? হ্যাঁ তবে দুঃখের বিষয় এই যে, সরকারের উপর প্রভাব পড়েনি। বিশ্ব মৃত্যু দেখেছে। শুধু মোদী সরকারই দেখেনি।’

Reply