“দু’মাস পর তৃণমূল বলে কিছু থাকবে না”,বললেন তৃণমূল সভাপতি সুকণ্ঠ বণিক

আবারো তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্ব’ন্দ্ব উত্তর ২৪ পরগনা জেলার খড়দহে। বিবাদের ভিত্তি হলো পারিবারিক সম্পত্তি। শাসকদলের বি’রু’দ্ধে বোমাবাজির অভিযোগ উঠল। পুরসভার ২১ নম্বর ওয়ার্ডের বিদায়ী কাউন্সিলর দোলা দাসের বাড়ির সামনে বুধবার রাতে বো-‘মা’বাজি হয় বলে অভিযোগ। এই ঘটনার পর টাউন তৃণমূল সভাপতি সুকণ্ঠ বণিক পুরসভার প্রশাসক কাজল সিনহার বি’রু’দ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিলেন।

বিদায়ী কাউন্সিলর দোলা দাস জানিয়েছেন, সম্প্রতিককালে তার দেওরের সঙ্গে সম্পত্তি নিয়ে একটু ঝামেলা হয়। সেই কারণে ভয় দেখাতে তৃণমূল নেত্রী তথা পুরসভার প্রশাসক কাজল সিনহার অনুগামীরা দোলা দাস এর বাড়ির সামনের বো’মা’বা’জি শুরু করে। এমনকি অকথ্য ভাষায় গা’লি’গালাজ করা হয়। ঘটনার খবর পুলিশের কাছে পৌঁছাতে সঙ্গে সঙ্গে খড়দহ থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে হাজির হন।

খড়দহ টাউন তৃণমূল সভাপতি সুকণ্ঠ বণিকের অনুগামী দোলা দাস। তার বাড়ির সামনে বো’মা’বা’জি হওয়ার কারণে পুরো প্রশাসক কাজল সিনহার ওপর তিনি অত্যন্ত ক্রুদ্ধ হয়েছেন।

সুকণ্ঠবাবু বলেন,”কাজল সিনহার নেতৃত্বে তাঁর অনুগামীরা খড়দায় স’ন্ত্রা’স কায়েম করতে চাইছে। মহিলাদের পুরসভায় ডেকে হুম’কি দিচ্ছেন পুর প্রশাসক। মহিলাদের নানা ভাবে অসম্মান করা হচ্ছে। এসব চলতে থাকলে ২ মাসের মধ্যে খড়দায় তৃণমূল কংগ্রেস বলে কিছু অবশিষ্ট থাকবে না”।

খড়দহের এই তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে পরিপ্রেক্ষিতে সরব হয়েছে বিজেপি সংগঠন। তাদের দাবি,”তৃণমূল নেতাই বলছেন, ২ মাসের মধ্যে তৃণমূল বলে কিছু থাকবে না। তাহলে বুঝুন কী পরিস্থিতি।” তবে এ বিষয়ে পুরো প্রশাসক কাজল সিনহার কোন মন্তব্য সামনে আসেনি।

Reply