‘মুখ্যমন্ত্রী ৪০০ টাকা শাড়ি পরেন আর ছোট পাপ্পু ৪ লক্ষের চশমা’, কটাক্ষ দিলীপের

দু’জন পাপ্পু রয়েছেন। একটি দিল্লিতে, আর এক জন পশ্চিমবঙ্গে।দিল্লির পাপ্পু ‘বড়’ আর পশ্চিমবঙ্গের পাপ্পু ‘ছোট’। নাম না করে যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি তথা তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে এভাবেই খোঁচা দিলেন পশ্চিমবঙ্গের বিজেপির পর্যবেক্ষক কৈলাশ বিজয়বর্গীয়।

৮ অক্টোবর ‘গণতন্ত্র বাঁচাও’ দাবিতে নবান্ন অভিযানের ডাক দিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টির যুব মোর্চা। এই নিয়ে শুক্রবার নদিয়ার চাকদা চৌরাস্তায় একটি সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়। সেখানেই সরাসরি কারও নাম না করে কৈলাসের কটাক্ষ, “দিল্লিতে যেমন বড় পাপ্পু, এখানেও তেমন এক ছোট পাপ্পু আছেন। মুখ্যমন্ত্রী চারশো টাকার শাড়ি পরেন, দুশো টাকার চটি পরেন। আর ছোট পাপ্পু চার লক্ষ টাকার সোনার চশমা পরেন, ১০-১৫ হাজার টাকার জুতো পরেন!”

উল্লেখ্য, লোকসভা ভোটের সময় থেকেই বিজেপির শীর্ষ নেতারা রাহুল গান্ধীকে ‘পাপ্পু’ বলে কটাক্ষ করেছেন। এমনকি এখনও সেই ট্র্যাডিশন অব্যাহত রয়েছে। বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ্ থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নানা সময়েই রাহুল গান্ধীকে বিঁধতে ‘পাপ্পু’ বলেছেন। এবার বাংলাতেও সেই কৌশল নিল বিজেপি।

তবে এদিন কৈলাস বিজয়বর্গীয় কথাতেই স্পষ্ঠ, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে অনাড়ম্বর জীবন কাটান তা কার্যত মেনে নিয়েছেন তিনি।
এদিন মঞ্চে বক্তব্য রাখতে গিয়ে মুকুল রায় বলেন, “বাংলার গণতন্ত্র ফেরত দিতে হবে রাজ্য সরকারকে। আজ তৃণমূলের কথা শোনার কোনও লোক নেই। প্রতিটা দেওয়ালে লেখা হয়ে গিয়েছে ২০২১- এর ভবিষ্যৎ।‘ কৃষি বিল নিয়ে তিনি বলেন, ‘কৃষি বিল পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। রাজ্য বাধা দিচ্ছে ঠিকই কিন্তু কৃষকরাই এই বিল অনুমোদন করেছেন। ফলে এই বিল ঐতিহাসিক।”

Reply