অসাধ্য সাধন! মাত্র ৯বছর বয়সেই অনলাইনে যোগা প্রতিযোগিতায় প্রথম হলেন বাংলার ছেলে স্বপ্নজিৎ

মাত্র নয় বছর বয়সে অসাধ্য সাধন করলো স্বপ্নজিৎ। নদীয়াজেলা শান্তিপুরের কাসাঁরিপাড়া নিবাসী সোম্যনাথের একমাত্র পুত্র স্বপ্নজিৎ। এইটুকু বয়সে সে তার পরিবারের স্বপ্ন পূরণ করেছে। স্বপ্নজিত এখন তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র।

ছোটবেলা থেকেই সে প্রায়ই অসুস্থ হয়ে পড়তো। ডাক্তার দেখিয়েও তার সমস্যার সমাধান হয়নি।দাদু, ঠাকুরমা রামদেবের যোগাশ্রমে বেড়াতে গিয়ে শুনেছিল রোগ নিরাময়ে যোগ ব্যায়ামের উপকারিতা কথা, তার বাবা ও ডাক্তারের কাছ থেকে একই পরামর্শ পেয়েছিল। তারপরেই স্বপ্ন যেতে শুরু হয় যোগাচর্চা।

প্রথমে স্থানীয় যোগগুরু দের কাছই চলতো তার শিক্ষা। পরবর্তীতে বয়স বাড়ার সাথে সাথে সে স্থানীয় গুরুদের থেকে প্রশিক্ষণ নেওয়ার পাশাপাশি অনলাইনে বিভিন্ন দেশ বিদেশের যোগগুরুদের থেকে যোগা শিখতো সে।তাতেই নজির গড়লো স্বপ্নজিত।

দিল্লির হিরণ্যগর্ভ যৌগিক এন্ড বৈদিক ইনস্টিটিউটের আয়োজনে অনলাইন যোগা কম্পিটিশনে প্রথমে স্টিল ছবি পরবর্তীতে ভিডিও। তারপরে আবার অনলাইনে বিচারকদের উপস্থিতিতে সকল প্রতিযোগিদের একইসাথে পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে পাঁচটি বিভাগের পুরুষ এবং মহিলা মোট দশটি ইভেন্টে প্রথম দ্বিতীয় তৃতীয়দের পুরস্কৃত করা হয়।

গতকালই স্বপ্নজিতের বাড়িতে কুরিয়ারে এসেছে খামবন্দী মেডেল আর আজ তার প্রথম হওয়ার শংসাপত্র। এ বিষয়ে স্বপ্নজিতের থেকে জানতে চাইলে স্বপ্নজিত জানায়, যে তার যোগ ব্যায়াম করতে খুবই ভালো লাগে।দেশ-বিদেশে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পরিবার এবং বন্ধুদের সকলের সাথে একসাথে যাওয়া যায়। স্বপ্নজিতের এই সাফল্যে খুবই খুশি তার পরিবারসহ বন্ধুবর্গ।

Reply