‘আমি থাকতে কৃষকদের মারতে দেব না’, ‘কঠিন’ উত্তরবঙ্গের উন্নয়নকেই জয়ের মন্ত্র বানালেন মুখ্যমন্ত্রী

ক’রোনা আবহে উত্তরবঙ্গ সফরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জেলাশাসক, মহকুমাশাসক আর বিডিওদের নিয়ে উত্তরবঙ্গের প্রশাসনিক বৈঠক করলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী কৃষি বিল নিয়ে সমালোচনার পাশাপাশি লোকসভায় উত্তরবঙ্গে জয়লাভ না করতে পারার দুঃখ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিনের বৈঠকের সকলেই র‍্যাপিড কো’ভিড টেস্ট করিয়ে তবেই আসেন।

কোচবিহার, জলপাইগুড়ি ও আলিপুরদুয়ারের জেলা প্রশাসনের কর্তাদের সঙ্গে মঙ্গলবার বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। এরপর বুধবার দার্জিলিং ও কালিম্পং জেলার প্রশাসনিক কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন।

এদিনের বৈঠক থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন,”পুজোর সময় করোনা নিয়ে বিশেষভাবে সতর্ক থাকতে হবে। যে কোনও ধরনের অসতর্কতা বিপদ ডেকে আনতে পারে। উত্তরবঙ্গে ক’রো’না নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। সেটা যেন নষ্ট না হয়”।

পুলিশ সহ সকল ক’রো’না যো”দ্ধাদের উদ্দেশ্যে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,”কো’ভি’ড যো’দ্ধা’দে”র জন্য আমি গর্বিত। তাঁদের জন্যই উত্তরবঙ্গে কো’ভি’ড নিয়ন্ত্রণে আছে।’ সেইসঙ্গে উদ্বাস্তদের মন রাখতে তিনি বলেন, “সেলফ ডিক্লারেশন সার্টিফিকেটেই সরকারি কাজ হবে। উদ্বাস্তুদের জন্যও এই সার্টিফিকেটই যথেষ্ট। অন্য কোনও সার্টিফিকেটের প্রয়োজন হবে না।”

আফসোস করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,”উত্তরবঙ্গে প্রচুর কাজ হয়েছে। অথচ দাম পাইনি। বরং যারা কাজ করেনি ওকে, শুধু দাঙ্গার কথা বলেছে, তারা ফল পেয়েছে”। উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন করলেও লোকসভায় বিজেপির জয়লভ নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের কাজ তিনি কোনদিনও স্থগিত রাখতে দেবেন না। তিনি বলেন,”মানুষের জন্যে কাজে কোনওরকম গাফিলতি বরদাস্ত করা হবে না। জোর করে কোনও কাজ আটকানো যাবে না।

কারও পেনশন আটকানো যাবে না।” কৃষি বিল নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে কটাক্ষ করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,”কৃষকদের জীবন নষ্ট করার চক্রান্ত চলছে। আমরা তা হতে দেব না”। কৃষকদের স্বার্থে মুখ্যমন্ত্রী মুখ্যসচিব কে বিকল্প পথ খোঁজার নির্দেশ দেন।

Reply