বাংলার রাজনীতি অগ্নিগর্ভ, বিজেপি নেতা অর্জুন সিং এর সহযোগী গু’লি’তে ঝাঁ’জরা, র’ণক্ষে’ত্র বারাকপুর

বিধানসভার ভোট এগিয়ে আসতেই বাংলার রাজনীতি অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠছে। রোববার রাত ১০টা নাগাদ উত্তর চব্বিশ পরগনার টিটাগড় থানার ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে গুলিতে ঝাঁ’জরা হয়ে মৃ’ত্যু হল বিজেপি এর বাহুবলি নেতা অর্জুন সিং এর বাহুবলি ডান হাত মনীশ শুক্লার।

অর্জুনের পদাঙ্ক অনুসরণ করে মনীশ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রোববার রাতেই র’ণক্ষে’ত্রের চেহারা নেয় বারাকপুর শিল্পাঞ্চল। প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয় এলাকায়। বিজেপি সোমবার বারোঘণ্টার বারাকপুর বন্ধের ডাক দিয়েছে। মনীষ শুক্লার বাড়িতে গেছেন বিজেপির বরিষ্ঠ নেতারা। বিজেপি জানিয়েছে, তৃণমূলের ঘাতক বাহিনী এই কাজ করেছে। তৃণমূলের পাল্টা অভিযোগ, বিজেপির দলীয় কো’ন্দলের ফলে এই হ’ত্যা’কা’ণ্ড।

রাজ্যপাল জগদীপ ধনকার এই ঘটনার জেরে রাকভবনে ডেকে পাঠিয়েছেন স্বরাষ্ট্র সচিব ও রাজ্য পুলিশের ডিজিকে। রোববার রাতে অর্জুন ও মনীশ হাওড়ায় একটি বৈঠকে গিয়েছিলেন। অর্জুনের কলকাতায় একটি বৈঠক থাকায় পাঁচলা থেকে দুজনের পথ আলাদা হয়ে যায়। অর্জুন কলকাতার দিকে চলে যান। মনীশ চলে যান টিটাগড়ে।

সেখানে বাড়ি যাওয়ার আগে যখন কয়েকজন অনুগামীর সঙ্গে কথা বলছেন সেই সময় মুখে কাপড় বেঁধে চার পাঁচজন দুষ্কৃতী বাইকে করে এসে পয়েন্ট ব্ল্যাংক রেঞ্জ থেকে গু’লি করে ঝাঁ’জরা করে মনীশকে। রক্তাপ্লুত মনীশ মাটিতে লুটিয়ে পড়তেই বাইক চালিয়ে পালায় দু’ষ্কৃতীরা। মনীশকে বাইপাসের একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাকে মৃ’ত বলে ঘোষণা করা হয়। বাহুবলি হিসেবে নামডাক ছিল মনীশেরও। অর্জুন সিং কদিন আগেই অভিযোগ করেছিলেন তাকে ও তার সহযোগীদের টার্গেট করা হচ্ছে।

Reply