“রাজ্যের সমস্যাগুলি থেকে নজর ঘোরাতে নাটক করছেন মুখ্যমন্ত্রী”,দাবি দিলীপের

রবিবার সকালে তমলুকে প্রাতঃভ্রমণে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র আ’ক্রমণ করে মন্তব্য করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিন চায় পে চর্চা যোগদান করে দিলীপ ঘোষ বলেন,”রাজ্যের সমস্যাগুলি থেকে নজর ঘোরাতে চালাকি করে পথে নেমে প্রতি’বাদের নাটক করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়”।

মুখ্যমন্ত্রীর বি’রুদ্ধে দিলীপ ঘোষ বলেন,”আম্ফানে লক্ষ লক্ষ টাকার ত্রাণ চু”রি হয়েছে। কাটমানি, ক’রো’না মোকাবিলায় সরকারের ব্যর্থতা, রাজ্যে সাধারণ মানুষের হাহাকার থেকে নজর ঘোরাতেই উত্তরপ্রদেশের ঘটনায় পথে নেমে প্রতি’বা’দের নাটক করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। স্থানীয় মানুষদের নিয়ে ওনার কোন চিন্তা নেই।”

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য,উত্তরপ্রদেশের হাথরাসের দলিত তরুণীর কা’ণ্ডে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতার রাজপথে হাঁটেন। এদিন মেয়ো রোডে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় থেকে বিজেপির বি’রুদ্ধে তীব্র আ’ক্রমণ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মুখ্যমন্ত্রী মমতাদির বিরোধিতা করে সরব হন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন,”হাবরাতে এক আদিবাসী মেয়ে ধ’র্ষি-তা হয়েছেন। অথচ সেখানে কোন তৃণমূল নেতা যায়নি। চোপড়ায় ১৬ বছরের কিশোরী ধ-র্ষি’ত হয়েছিল তখন চুপ ছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার।

পার্কস্ট্রিটের ঘটনাকে উনি ছোট ঘটনা বলেছেন। কামদুনিতে কোন বিরোধী নেতাদের ঢুকতে দেওয়া হয়নি। যারা এই ধরনের কাজ করেন তাদের কোনো অধিকার নেই পথে নেমে প্রতিবাদ এর নাটক করার।”

উত্তরপ্রদেশের ধ-র্ষ-ণের ঘটনা নিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন,”স্থানীয় জেলাশাসক, পুলিশ সুপার, আইসিকে সাসপেন্ড করেছেন যোগী আদিত্যনাথের সরকার। এমনকি পুরো ঘটনার তদন্তভার সিবিআইয়ের হাতে ছেড়ে দিতেও প্রস্তুত উত্তরপ্রদেশ প্রশাসন। কোন ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে প্রশাসনের যা যা করা উচিত তাই তাই করেছেন যোগী আদিত্যনাথ চালিত সরকার।”

রাজ্যের বিষয়গুলির ক্ষেত্রে মুখ্যমন্ত্রীর উদাসীনতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন,”এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কখনো কোন ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সক্রিয় হননি বরং তিনি ঘটনাগুলিকে চাপা দিতে চেষ্টা করেছেন।” উত্তরপ্রদেশে দলিতদের বাড়িতে দেখা করতে গিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বকে ফিরে আসতে হয়। এই নিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, তারা রাজ্যের কোন সমস্যার হাল দেখছেন না, ওখানে যাচ্ছেন নাটক করতে।

Reply