“পার্টি থেকে করে খাচ্ছেন, আর কর্মীদেরই বঞ্চিত করছেন”, বিতর্কিত মন্তব্য বেচারাম মান্নার

বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন হরিপালের তৃণমূল বিধায়ক বেচারাম মান্না। রবিবার হুগলির উত্তরপাড়া কর্মী সভায় দলের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করতে গিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করলেন উদয়ন গুহর পথে হেঁটে। এই নিয়ে রাজনৈতিক মহলে চাপানউতোর শুরু হয়েছে। দিলীপ যাদব এই মন্তব্যের পাল্টা জবাব দিয়েছেন।

উত্তরপাড়া সভা থেকে দলীয় কর্মীদের প্রতি ক্ষোভ উগরে দেন বেচারাম মান্না। হরিপালের তৃণমূল বিধায়ক বেচারাম মান্না এদিন দলীয় কর্মীকে নিশানা করে বলেন,”পার্টি থেকে করে খাচ্ছেন আর কর্মীদের বঞ্চিত করছেন।

প্রয়োজনে কর্মীরা ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করবেন। হুগলি জেলায় এরকম পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।” এরপরই কর্মীদেরকে সমর্থন করে বেচারাম মান্না বলেন,”আমিও কর্মীদের মধ্যে থেকে উঠে এসেছি। তাই ওদের পরিস্থিতি ওদের যন্ত্র’ণা আমি বুঝি।”

বেচারাম মান্নার মন্তব্যকে গুরুত্ব দিয়ে দেখতে নারাজ হুগলির তৃণমূল সভাপতি দিলীপ যাদব। তিনি বলেন,”দলের শক্তিবৃদ্ধি করাই আমার কাজ। কে কী বলল তাতে আমার কিছু এসে যায় না।” এই মন্তব্য থেকে পরিষ্কার বোঝাই যাচ্ছে জেলা সভাপতি ও বিধায়কের মধ্যে অন্তর্কলহ শুরু হয়েছে।এই বিষয়কেই হা’তিয়া’র করে এগিয়ে যেতে চাইছে বিজেপি।

শুক্রবার রাতে দিনহাটার নিগমনগর এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের এক কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হয়। এদিন বিধায়ক বলেন,”অনেক খেয়েছেন, ভবিষ্যতেও খেতে পারবেন। ৬ মাস যদি না খান তবে পরবর্তীতে খাবার অনেক সুযোগ পাবেন।” বিধায়কের এহেন মন্তব্য চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে অস্বস্তিতে পড়ে শাসক দল।

মন্তব্য কে সামনে রেখে বিজেপির সভাপতি মালতি রাভা বলেন, “এখানে বিধায়ক স্পষ্ট করে দিয়েছেন তৃণমূলের পঞ্চায়েত প্রধান দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। বিধানসভা নির্বাচনের আগে তারা দুর্নীতি করলে সাধারণ মানুষ কখনও পাশে থাকবে না। তাই গ্রামবাসীদের ভাওতা দিয়ে ৬ মাস কাজ করে পরের পাঁচ বছর লুটের পরিকল্পনা করেছে। এটা কখনই হবে না। মানুষ সব বোঝে। তার যোগ্য জবাব এবার নির্বাচনে তৃণমূল পাবে।”

Reply