চালু হলো মোদি সরকারের আরো একটি নতুন প্রকল্প “প্রপার্টি কার্ড”, কি কি সুবিধা পাওয়া যাবে এই কার্ডে?

প্রপার্টি কার্ড চালু করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। দেশের প্রতিটি গ্রামকে স্বনির্ভর করতে প্রধানমন্ত্রীর এই উদ্যোগ। রবিবার ভার্চুয়ালি এই প্রকল্পের শুভ সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী। গ্রামবাসীরা তাদের জমি ও সম্পত্তির মালিকানা থেকে যাতে কোনভাবে বঞ্চিত না হন সে কারণে এমন ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত। গ্রামে সম্পত্তির ভাগাভাগি নিয়ে ঝামেলা মিটে যাবে বলে মনে করেন তিনি।

এদিন প্রপার্টি কার্ড চালু করার পর প্রধানমন্ত্রী জানান,গ্রামের বাসিন্দারা এই প্রকল্পের মাধ্যমে তাঁদের জমি ও সম্পত্তি অর্থনৈতিক লগ্নী হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে। একইসঙ্গে লোন নেওয়া সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সুবিধা পাবে তারা। দেশবাসীর উদ্দেশ্যে বার্তায় তিনি বলেন,”এবার থেকে আপনার জমির দিকে কেউ চোখ তুলে তাকাকে পারবে না”।

প্রপার্টি কার্ড চালু করার পর দেশের ৬ টি রাজ্যে ৭৬৩ টি গ্রামে মানুষকে সিএমএস লিংক পাঠানো হবে। ওই লিংকে ক্লিক করলে মানুষ প্রপার্টি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন। উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানা, মহারাষ্ট্র, উত্তরাখণ্ড, কর্ণাটক, এই ছটি রাজ্যে কার্ড দেওয়া হবে। উত্তরপ্রদেশের ৩৪৬, হরিয়ানার ২২১, মহারাষ্ট্রের ১০০, মধ্যপ্রদেশের ৪৪, উত্তরাখণ্ডের ৫০ ও কর্ণাটকের ২ টি গ্রামে এই কাজ হবে। এই কার্ডের জন্য জমি কেনাবেচাতেও সুবিধা পাওয়া যাবে।

মহারাষ্ট্র ছাড়া বাকি রাজ্যগুলিতে রবিবার থেকে কার্ড বিলি হবে। এই কার্ড বিলির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট রাজ্য দায়িত্ব নেবে। অন্যদিকে,মহারাষ্ট্রে টাকার বিনিময়ে কার্ড দেওয়ার প্রকল্প রয়েছে। তাই এই বিষয়ে কিছুদিন সময় লাগবে।

কেন্দ্রের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে,২০২৪ সালের মধ্যে সারাদেশের বিভিন্ন মানুষের কাছে এই কার্ড পৌঁছে যাবে। মনে করা হচ্ছে যে,দেশের ৬.৬২ লক্ষ মানুষ স্বামিত্ব যোজনার আওতায় আসবেন।

সার্ভে অফ ভিলেজেস অ্যান্ড ম্যাপিং উইথ ইম্প্রোভাইজড টেকনোলজি ইন ভিলেজ এরিয়াস প্রকল্পের উদ্বোধন করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী অনেক উপভোক্তার সঙ্গেও সরাসরি কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। গ্রামের জমি ও সম্পত্তির মালিকানা সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য ডিজিটাল অ্যাপে নথিবদ্ধ থাকবে।

Reply