সরকারি প্রকল্পের জন্য কেউ টাকা চাইলে সরাসরি থানায় জানান! বললেন মুখ্যমন্ত্রী

তৃণমূল সরকারের বি’রুদ্ধে কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বারবার।সম্প্রতি আম’ফানের স্থানের টাকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হলো তার বেশিরভাগই গেছে নেতা-মন্ত্রীদের পেটে, এমনই অভিযোগ করেছেন বিরোধীরা।

এদিন ঝারগ্রাম এর প্রশাসনিক বৈঠকের দলীয় নেতা-কর্মী এবং প্রশাসনিক আধিকারিকদের কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কোন সরকারি প্রকল্প থেকে তাকে একটিও মানুষ বঞ্চিত না হয় সেদিকে নজর রাখার দায়িত্ব দিয়েছেন তিনি। কোন সমস্যা থাকলে সাধারণ মানুষ যেন সঙ্গে সঙ্গে পুলিশকে জানান, এমনটাই বক্তব্য রেখেছেন তিনি।

এদিন পথ শ্রী প্রকল্পের কথা নিয়েও আলোচনা করেন তিনি। এক্ষেত্রে তিনি বলেন গত শ্রী প্রকল্পের কাজে যেন দয়া করে বাধা না দেয়া হয়। যদিও দলের কোনো নেতাকর্মী সাধারন মানুষের কাছ থেকে টাকা আদায় করতে চান,কাঁদানো সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় পুলিশ আধিকারিক কে জানানো হয়, তার বিরুদ্ধে তখনই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সরকার সাধারণ মানুষদের পাশেই আছে।

এ প্রসঙ্গে বিরোধীদেরও কটাক্ষ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন শুধু বড় বড় কথা না বলে বিরোধীরা যেন একটু নিজেরা কাজ করে দেখান।এইসব কথা বলে বিরোধীরা উন্নতি মূলক কাজে বাধা সৃষ্টি করছেন।নির্বাচনের আগে ঝাড়গ্রামে যাতে নতুন করে কোনো অশান্তির পরিবেশ তৈরি না হয় সেদিকেও লক্ষ্য রাখার কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রীর প্রকল্পের মধ্যে একটি উল্লেখযোগ্য প্রকল্প “মাটির সৃষ্টি” প্রকল্প।নতুন ধরনের এই প্রকল্পে মুখ্যমন্ত্রী বলেন পতিত জমিতে উর্বর করে কাজে লাগানোর কথা ভাবা হয়েছে এখানে, এর মাধ্যমে বহু মানুষ কাজ পাবেন।

রাজ্যে কর্মসংস্থানের হার বাড়বে বলে জানিয়েছেন তিনি। এই প্রসঙ্গে চেক ড্যাম প্রকল্পের কথা উল্লেখ করেন তিনি। এছাড়া ঝারগ্রাম এর বর্তমান করোনা পরিস্থিতি নিয়েও কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী। চেন্নাই এবং মুম্বাই থেকে লরি ঝাড়গ্রামে ঢোকে, তাই কোন ভাবে যাতে সং’ক্র’মণ না হয় তার জন্য সরকারি আধিকারিকদের লক্ষ্য রাখার কথাও বলেন তিনি।

তৃণমূল কংগ্রেস সরকারের শাসনকালে কর্মসংস্থান নেই রাজ্যে ,এমনটাই দাবি জনগণের। দীর্ঘদিন ধরে নেই কোন নিয়োগ, মাটির সৃষ্টি প্রকল্পের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের আশা রয়েছে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

Reply