পুজোর পরেই খুলছে গোন্দলপাড়া জুটমিল, সৌজন্যে হুগলির বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়

গোন্দলপাড়ায় ফুটল হাসি, পুজোর পরেই পয়লা নভেম্বর থেকে খুলে যাচ্ছে হুগলির গোন্দলপাড়া জুটমিল। এদিন এমনটাই জানিয়েছেন হুগলির বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়।তিনি বলেন, দীর্ঘ টালবাহানা এবং দুই বছরের অপেক্ষার পর জুটমিল খুলতে চলেছে। লকেটের সাফ বক্তব্য, আগামী বছর রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর একের পর এক বন্ধ কারখানা এইভাবেই খুলে যাবে।

আজ থেকে তিন বছর আগে বিভিন্ন সমস্যার কারণে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল হুগলি জেলার অন্যতম এই জুটমিলটি। দীর্ঘদিন ধরেই শ্রমিকরা কর্মহীন ছিলেন। অনেকেই বাঁচার তাগিদে এলাকা ছেড়ে চলে গিয়েছেন। যে ক’টি পরিবার এখনো রয়েছে তাদের করোনা পরিস্থিতিতে অবস্থা অত্যন্ত খারাপ। জেলার সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় এর মুখে এই খবর শুনে তাদের মধ্যে স্বস্তির নিঃশ্বাস পড়েছে।

লকেট জানিয়েছেন, তিনি অনেকবার এলাকায় গিয়েছেন। শ্রমিক পরিবারগুলির সঙ্গে কথা বলেছেন। এক শ্রমিকের আত্মহত্যার কথাও তিনি জানিয়েছেন। সংসদে এই জুটমিল খোলার অনেক চেষ্টা করা হয়েছে। এরপর সরকারের সঙ্গে মালিক পক্ষের আলোচনা করানো হয়েছে, তারপর অবশেষে এই জুটমিল পুনরায় খোলার আশ্বাস মিলেছে।

লকেটের অভিযোগ, জুটমিল খুলতে গিয়ে রাজ্য সরকার এবং চন্দননগরের তৃণমূল বিধায়ক তাকে বারংবার বাধা দিয়েছেন।তারা নিজেরা কোন ব্যবস্থা করতে পারেননি অনেক অনুরোধ-উপরোধের পরেও। গতবছর লোকসভা নির্বাচনের আগে নাম কা ওয়াস্তে ভোট কেনার জন্য তৃণমূল সরকার এই জুট মিল খুলেছিল কিন্তু ভোটে ওই এলাকায় হেরে যাওয়ার পরেই ফের বন্ধ করে দেওয়া হয় জুটমিলটি।

লকেটের অভিযোগ, তৃণমূল অনেক চেষ্টা করেছে জুট মিল বন্ধ রাখতে। কিন্তু শেষে তারা পরাস্ত হয়েছে। লকেট আশা করছেন যে হুগলির তৈরি জুটের ব্যাগ এবার সারা ভারতে ছড়িয়ে পড়বে। তবে তৃণমূল সরকার যদি এই জুটমিল আবার বন্ধের চেষ্টা করে তাহলে এবার কেন্দ্রীয় সরকার গোটা বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়ে রেখেছেন হুগলির এই লড়াকু সাংসদ।

Reply