বিক্রি করে দিতে চাই মোদি সরকার, ১১গুন মুনাফা বাড়লো ইন্ডিয়ান ওয়েলের

লোকসভা ভোটে দ্বিতীয়বার দেশের ক্ষমতায় আসার পর মোদি সরকার বিলগ্নীকরনের ওপর বেশি জোর দিয়েছেন। কোন কোন সংস্থা বিলগ্নীকরণ করা হবে তার রূপরেখা মোটামুটি তৈরি হয়ে গিয়েছে।

সেই তালিকায় প্রথমের দিকে রয়েছে ইন্ডিয়ান অয়েলের নাম। চলতি অর্থবছরে এই রাষ্ট্রায়ত্ত তেলের সংস্থাটি দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকের আগেই তিন গুণের বেশি মুনাফা অর্জন করতে পেরেছে। ১১গুন লাভ বৃদ্ধি পেয়েছে।

লকডাউন শিথিল হতেই তেলের চাহিদা বেড়েছে। ইন্ডিয়ান অয়েলের পক্ষ থেকে গত সেপ্টেম্বরে শেষ হওয়া ত্রৈমাসিকের আর্থিক ফলাফল লক্ষ্মী পুজোর দিন প্রকাশ করা হয়েছে। ইন্ডিয়ান অয়েল ৬ হাজার ২২৭ কোটি টাকা মুনাফা অর্জন করেছে মাত্র তিন মাসে।

বিশেষজ্ঞদের পূর্বাভাস,ওই ত্রৈমাসিকে তাদের মুনাফার অঙ্ক ২ হাজার ৮০০ কোটি টাকার কাছাকাছি থাকবে। লকডাউন পর্বে আগের ত্রৈমাসিকে ১ হাজার ৯১০ কোটি টাকা নিট মুনাফা করেছিল ইন্ডিয়ান অয়েল। গত আর্থিক বছরের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে ৫৬৩ কোটি টাকা নিট মুনাফা করেছিল তারা।

ইন্ডিয়ান অয়েলের পক্ষ থেকে শেয়ার বাজার নিয়ামক সংস্থাকে জানানো হয়েছে, চলতি অর্থবর্ষে প্রথম ত্রৈমাসিকের তুলনায় তৃতীয় ত্রৈমাসিকে পরিচালন ক্ষেত্র থেকে তাদের ৭১ শতাংশ মুনাফা বেড়েছে।

টাকার অঙ্কে তার হিসাব ৯ হাজার ৪২৭ কোটি টাকা। আর অন্যান্য খাতে আয় ১৩৯ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ১ হাজার ৫৩৭ কোটি টাকা। এপ্রিল-জুন ত্রৈমাসিকে তাদের অপারেটিং মার্জিন ছিল ৮.৮ শতাংশ। জুন-জুলাই মাসে ১১ শতাংশ বেড়েছে।

কেন্দ্রীয় সরকারের বিবেচনাধীন আর্থিক সংস্কার প্রক্রিয়ার অঙ্গ হিসেবে বেশ কয়েকটি সংস্থার সরকারি অংশিদারিত্ব ৫১ শতাংশের নীচে নামিয়ে আনার একটি প্রস্তাব ছিল। এই তালিকায় ইন্ডিয়ান অয়েলের নাম অন্যতম। বিলগ্নীকরনের পর কোষাগারে ৩৩,০০০ কোটি টাকা আসবে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী।

ইন্ডিয়ান অয়েলের ৫১.৫ শতাংশ অংশিদারিত্ব কেন্দ্রীয় সরকারের হাতে থাকবে। ২০২০-২১ অর্থবর্ষে আর্থিক ঘাটতি জিডিপির ৮ শতাংশ ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। সরকারি সম্পত্তি বিক্রির মাধ্যমে ২ লক্ষ ১০ হাজার কোটি টাকা আয়ের লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করেছে কেন্দ্র

Reply