শাসন ব্যবস্থার নিরিখে দেশের সবথেকে সেরা রাজ্য কেরালা, সবচেয়ে নীচে যোগীর উত্তরপ্রদেশ, দাবি সমীক্ষার

শাসন ব্যবস্থার নিরিখে এগিয়ে রয়েছে কেরল। এই তালিকাতেই সবচেয়ে পিছিয়ে রয়েছে যোগী রাজ্য। বেঙ্গালুরুর স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সমীক্ষা অন্তত সেটাই বলছে। প্রাক্তন ইসরো প্রধান কে কস্তুরিরঙ্গনের নেতৃত্বাধীন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন পাবলিক অ্যাফেয়ার্স সেন্টার এই সমীক্ষাটি করেছে বলে জানা গিয়েছে।

এই সমীক্ষায় মূলত দক্ষিণ ভারতের রাজ্যগুলি শাসন ব্যবস্থার দিকে এগিয়ে রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।স্বীকৃত এই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাটি মূলত সুসংহত উন্নয়নের পরিকল্পনা, জীবনধারণের মান, নাগরিকদের নিরাপত্তার মতো সূচকের নিরিখে সমীক্ষা চালিয়েছে।

সেই সমীক্ষা অনুযায়ী শাসন ব্যবস্থার নিরিখে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে রয়েছে বামশাসিত কেরল। স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার এই রিপোর্ট নিঃসন্দেহে আগামী বছর বিধানসভা নির্বাচনের আগে মুখ্যমন্ত্রী বিজয়নকে কিছুটা স্বস্তি দিল।

সবচেয়ে বড় কথা হল, ওই সংস্থাটির সার্ভে অনুযায়ী দেশের সবচেয়ে খারাপ ভাবে শাসিত রাজ্য হল উত্তরপ্রদেশ। এই পরিসংখ্যান মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে যথেষ্ট অস্বস্তিতে ফেলবে।যে চারটি রাজ্য শাসন ব্যবস্থার নিরিখে সব থেকে এগিয়ে রয়েছে প্রত্যেকটি দক্ষিণ ভারতীয় রাজ্য।

কেরলের পর দ্বিতীয় স্থানে তামিলনাড়ু, তৃতীয় অন্ধ্রপ্রদেশ এবং চতুর্থ কর্ণাটক। শেষের দিক থেকে যে তিনটি রাজ্য রয়েছে তা হলো,উত্তরপ্রদেশ, বিহার এবং ওড়িশা। বিহারের স্থান সবচেয়ে খারাপ ভাবে শাসিত রাজ্যের দিক থেকে দুই নম্বরে রয়েছে। নির্বাচনের সময় কালে নীতীশ কুমার সরকারের পক্ষে এই বিষয়ে খুবই সঙ্কটজনক।

অবশ্য বিজেপি শাসিত অপেক্ষাকৃত ছোট ছোট রাজ্য যেমন গোয়া, মেঘালয় এবং হিমাচল প্রদেশ সবার ওপরে রয়েছে। রাজ্যগুলির মধ্যে দেশে দ্বিতীয় সবচেয়ে খারাপভাবে শাসিত রাজ্য দিল্লি। অবশ্যই এর পেছনে সদ্য ঘটে যাওয়া দিল্লির হাঙ্গামা দায়ী রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

বিজেপি শাসিত মণিপুর ছোট রাজ্য গুলির মধ্যে সবচেয়ে নিচে রয়েছে। বিজেপি শাসিত উত্তরাখণ্ড শেষের দিক থেকে তিন নম্বরে রয়েছে। পাবলিক অ্যাফেয়ার্স সেন্টার ২০১৬ সাল থেকে প্রত্যেক বছর বিভিন্ন তথ্যের উপর নির্ভর করে বিভিন্ন রাজ্যের পারফরম্যান্সের তালিকা তৈরি করে। তাদের তৈরি এই তালিকা সারা দেশে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।

Reply