ইতিহাস গড়লেন ভারতের মেয়ে, নিউজিল্যান্ডের মন্ত্রী হলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত প্রিয়াঙ্কা রাধাকৃষ্ণন

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী পদে বসেছেন জেসিন্ডা আর্ডের্ন। প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডেনের মন্ত্রিসভায় ভারতীয় বংশোদ্ভূত এক মহিলাকে জায়গা দিলেন তিনি। ওই মহিলার নাম প্রিয়াঙ্কা রাধাকৃষ্ণন। তাঁর বয়স ৪১ বছর। নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসে কিউয়ি প্রধানমন্ত্রীর ক্যাবিনেটে এই প্রথম কোনও ভারতীয় বংশোদ্ভূত কন্যা মন্ত্রী হলেন।

কেরলের এর্নাকুলম জেলার উত্তর পারাভুরে জন্মগ্রহণ করেন প্রিয়াঙ্কা। আইআইটি কানপুর থেকে স্নাতকোত্তর পাশ করার পর কিছুদিন সিঙ্গাপুরে থাকতেন। এরপর তিনি নিউজিল্যান্ডের বাসিন্দা হন। তাঁর স্বামীও দেশের ক্ষমতাসীন লেবার পার্টির সদস্য। ২০০৬ সালে রাজনীতিতে আসেন প্রিয়াঙ্কা।২০১৭ সালে কিউয়ি সাংসদ হিসেবে নির্বাচিত হন তিনি।

সূত্রের খবর,প্রিয়াঙ্কা রাধাকৃষ্ণন আরও চারজনকে নিজের মন্ত্রিসভায় জায়গা দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডের্ন। তাদের সকলের মধ্যে প্রিয়াঙ্কা নিজের কর্মজীবনে অসহায় মানুষদের জন্য কাজ করে দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

গার্হস্থ্য নির্যাতনের শিকার হওয়া মহিলা ও বঞ্চিত হওয়া পরিযায়ী শ্রমিকদের অধিকারের জন্য দীর্ঘদিন ধরে লড়াই করেছেন প্রিয়াঙ্কা। ২০১৯ সালে মিনিস্টার ফর এথনিক কমিউনিটির পার্লামেন্টারি প্রাইভেট সেক্রেটারি পদে নিযুক্ত হন।

সোমবার নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর মন্ত্রিসভায় জায়গা করে নিতে পারার পর সোমবার প্রিয়াঙ্কা ফেসবুকে পোস্ট করেন,”আজ আমার জীবনের খুবই বিশেষ একটি দিন। আমাদের সরকারের একটি অংশ হিসেবে জায়গা পেয়ে আমি খুবই আনন্দিত।

যাঁরা সময় বের করে ফোন বা মেসেজের মাধ্যমে আমাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন তাঁদের প্রত্যেককে ধন্যবাদ জানাই। মন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত হওয়ার পর অসাধারণ সব সহকর্মীদের সঙ্গে কাজ করার জন্য মুখিয়ে রয়েছি আমি।”

মেয়ের এমন কৃতিত্বে আনন্দিত হয়ে প্রিয়াংকার বাবা আর রাধাকৃষ্ণন বলেছেন ,”মন্ত্রীত্ব পাওয়াতে অবাক হইনি, কারণ জেসিন্ডা আগেই ওর কাজের ওপর ভরসার ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছিলেন। তবে আমি খুব গর্বিত ওর নতুন দায়িত্বপ্রাপ্তি নিয়ে”। গতবছর জুলাই মাসে মায়ের শেষকৃত্যে সর্বশেষ কেরলের আসেন প্রিয়াঙ্কা।

Reply