একুশে ভোটের আগেই বাংলাদেশ বর্ডার সিল, ওপার থেকে ভোটার এনে ছা’প্পা দেবার দিন শেষ

একুশে বিধানসভা ভোটের আগেই; বাংলাদেশ বর্ডার সিল। ওপার বাংলা থেকে ভোটার এনে; এপার বাংলায় ছা’প্পা দেবার দিন শেষ। সামনেই বিধানসভা ভোট, তারই প্রচারে; দুদিনের সফরে বাংলায় এসেছেন; কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। গতকাল থেকেই তিনি বাংলায় ভোটের প্রচার; শুরু করেছেন পুরদমে।

বাঁকুড়ার কর্মীসভা থেকে, বাংলায় ২১ এর নির্বাচনে; বিজেপির জয়ের দাবি করেন তিনি। আগামীতে বাংলায় বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসবে বলে; কর্মীদের তৈরি থাকতে বলেন শাহ। বাংলায় গেরুয়া শিবিরের জয় নিশ্চিত করতে; তিনি সীমান্ত নিয়ে BSF কর্তাদের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ মিটিং করেন। সেখানেই বাংলাদেশ সীমান্ত সিল করার; নির্দেশ দেওয়া হয়।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে; BSF কর্তাদের মিটিংয়ে উপস্থিত ছিলেন; মালদহ, নদিয়া এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার; BSF এর উচ্চপদস্থ কর্তারা। এই মিটিংয়ে একুশের নির্বাচনের আগে; বাংলাদেশ সীমান্ত সিল করে দেবার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ভোটের আগে, কোন অ’নুপ্রবেশ নয়; বিএসএফ-কে পরিষ্কার নির্দেশ দিয়ে; জানিয়ে দিলেন অমিত শাহ।

সীমান্তের ওপার থেকে কোন অ’বৈধ বাংলাদেশী; যাতে ভারতে প্রবেশ করতে না পারে; সেই নিয়েও আলোচনা হয়েছে এই মিটিং-এ। সীমান্তের ওপার থেকে স’শস্ত্র বাংলাদেশীরা এসে, ভোট প্রভাবিত করার চেষ্টা চালায়; ও ভোটে অ’শান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করার চেষ্টা করে বলে; অভিযোগ ছিল বিজেপি কর্মীদের। শাসক দলের হয়ে ছা’প্পা ভোটও দেয় তারা; বলে অভিযোগ বিজেপি কর্মীদের। বাংলার বিজেপি কর্মীদের এই অভিযোগ খতিয়ে দেখে; নির্বাচনের আগে সীমান্ত সিল করার সিদ্ধান্ত; বিএসএফ-কে জানিয়ে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

একুশে বাংলা দ’খলের জন্য; সমস্ত রকম বন্দোবস্ত করতে; তৎপর বিজেপি নেতৃত্ব। আসন্ন নির্বাচনে দুই তৃতীয়াংশ আসন নিয়ে; ক্ষমতায় আসবে বিজেপি; বলে দাবি অমিত শাহের। তিনি জয়ের জন্য ২০০ আসনের লক্ষ্যমাত্রা; স্থির করে দিয়েছেন নেতা কর্মীদের। এবার সীমান্ত সিল করে; বিজেপি নেতা কর্মীদের অ’ভিযোগকেও গুরুত্ব দিলেন। তবে, এই সিদ্ধান্তকে; কোন গুরুত্ব দিচ্ছে না তৃণমূল। ‘মানুষ মমতাকে জেতাবে; তার জন্য তৃণমূলের ব’হিরাগত কাউকে লাগে না”; জানিয়েছে তৃণমূল।

Reply