তেজস্বীর তেজ নাকি নীতীশের কামব্যাক – মঙ্গলে বিহারের মসনদ দখলের ফয়সালা

নির্বাচন শুরুর কয়েক মাস আগে যেমনটা মনে করা হয়েছিল, বাস্তবে তা হয়নি। ছাইচাপা আগুন থেকে উঠে এসেছেন তেজস্বী যাদব নামক এক যুবা। বুঝিয়ে দিয়েছেন, বিজেপি-জেডি (ইউ) জোট যতই আস্ফালন দেখাক না কেন, বাস্তব কিন্তু অন্য কথা বলছে। তাই তো নির্বাচনের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে যখন তেজস্বীর সমাবেশে পিলপিল করে মানুষ হাজির হয়েছেন, সেখানে নীতীশের দিকে ধেঁয়ে এসেছে পেঁয়াজ-পাথর। আর তিন দফা ভোটের পর সর্বভারতীয় প্রায় সবকটি এক্সিট পোলেই দেখা গিয়েছে, নীতীশের বিজয়ঘণ্টা বাজতে চলছে। আর এমনই এক প্রেক্ষাপটে মঙ্গলবার বিহার ভোটের ফল ঘোষণা।

সোমবারই ছিল বিহারে বিরোধীদের মহাজোটের মুখ্যমন্ত্রী প্রার্থী তেজস্বী যাদবের জন্মদিন। তবে, ফল প্রকাশের আগের দিন তেমন জাঁকজমকভাবে নয়, বরং একেবারেই ঘরোয়াভাবে জন্মদিন পালন করেছেন তিনি। ২৪৩ আসনের বিহার বিধানসভা নির্বাচনের শেষদফার ভোটদান শেষ হয়েছে শনিবার। মঙ্গলবার হবে ফল ঘোষণা। গণনা শুরু হবে মঙ্গলবার সকাল ৮টায়।

এখনও পর্যন্ত জানা গিয়েছে, অন্যান্য বার ভোট গণনার জন্য যেখানে বিহারে ৩৮টি কেন্দ্র খোলা হয়, এবার করোনার কারণে তা বাড়িয়ে করা হয়েছে ৫৫। এর ফলে সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকবে বলে মনে করছেন নির্বাচনের সঙ্গে যুক্ত আধকারিকরা। মোট ৪১৪টি হলে হবে ভোট গণনা। নিরাপত্তার কারণে গোটা রাজ্যে ৫৯ কোম্পানি আধাসেনা মোতায়েন করা হয়েছে। স্ট্রংরুম পাহারার দায়িত্বে রয়েছে ১৯ কোম্পানি আধাসেনা।

এদিকে, বিহারের এক্সিট পোল দেখে জরুরি বৈঠকে বসে পরিস্থিতির পর্যালোচনা শুরু করেছে বিজেপি। বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, দিল্লিতে বিজেপির শীর্ষ নেতারা জরুরি বৈঠকে বসে বিহারের ভোট পরবর্তী সমীক্ষার ফলাফল পর্যলোচনা করতে চলেছেন৷ গুরুত্বপূর্ণ ওই বৈঠকে যোগ দেবেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা-সহ বিহারের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতারা। সেই সূত্রেই জানা গিয়েছে, বিহারের ভোট গণনার দিন সকাল থেকে সংবাদমাধ্যমে দলের অবস্থান ব্যাখ্যা করবেন মুখপাত্ররা৷

যদিও শনিবার বিহারের ভোট পরবর্তী সমীক্ষায় যে ভাবে মহাজোটের জয় দেখানো হয়েছে, তা মানতে রাজি নয় বিজেপি। দলীয় নেতৃত্বের দাবি, বিহারে ক্ষমতায় থাকবে এনডিএ জোটই। তবে ক্ষমতায় এলে নীতীশ কুমার নন, অন্য কেউ মুখ্যমন্ত্রী হবেন৷ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অশ্বিনী চৌবে বলেন, ‘এর আগেও দেখা গিয়েছে এক্সিট পোল বা ভোট পরবর্তী সমীক্ষার সঙ্গে বাস্তবের ফলাফলের মিল নেই৷ টিভির সমীক্ষা যাই দেখাক না কেন, দেখবেন বিহারে এনডিএ জোটই ক্ষমতায় থাকবে৷’ তবে তিনি নীতীশকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান না।

জানা গিয়েছে, বিহারের ফলাফলে যদি দেখা যায় যে, জেডিইউ-র ফল সন্তোষজনক নয়, সে ক্ষেত্রে মুখ্যমন্ত্রিত্বের দাবি থেকে নিজেকে সরিয়ে নিতে পারেন নীতীশ নিজেই। এমন সম্ভাবনাও আলোচিত হচ্ছে বিজেপির অন্দরে, প্রয়োজনে নীতীশকে মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে সরিয়ে বিহারে এনডিএ জোট সরকারকে ক্ষমতায় ধরে রাখা যায় কী না, তাও খতিয়ে দেখা হবে। তবে সবটাই নির্ভর করছে মঙ্গলবারের ফলের উপর। আপাতত তারই অপেক্ষা।

Reply