মায়ের জী’ বন বাঁ’ চা’ তে উন্মুক্ত চিত্র প্রদর্শনী

পৃথিবী ছুটছে মৃ’ ত্যু’ র পিছে । কে কতটা ভাঙতে পারে সে প্রতিযোগিতায় যখন সবাই মত্ত তখন একদল ছুটছে মানবতাকে বুকে ধরে। শিল্প বেঁচে জী’ ব’ ন বাঁ’চা’ তে। লক্ষ্য করোনায় আ’ ক্রা’ ন্ত মাকে বাঁ’ চা’ তে হবে।

ইউনিভার্সিটি অব ডেভলপমেন্ট অল্টারনেটিভ (ইউডা) এর চারুকলা অনুষদের ৪০ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী তারিক হাসনাত। সপ্তাহ দুয়েক আগে তার মা ক’ রো’ নায় আ’ ক্রা’ ন্ত হয়ে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন। দীর্ঘ ১৩ দিন ধরে মৃ’ ত্যু’ র সঙ্গে লড়ে যাচ্ছেন। সারা পৃথিবী জুড়ে যে মৃ’ ত্যু’ মিছিল নেমেছে তা শুধু প্রা’ ণ’ ই নিচ্ছে না। সংকটে ফেলেছে অর্থনীতির চাকাও।

১৩ দিনে হাসপাতালের বিল এসেছে এগারো লাখ টাকা। এরমধ্যে ৮ লাখের মত হাসনাতের পরিবার পরিশোধ করতে সক্ষম হয়েছে। বাকিটা দিতে অপারগ হয়ে পড়ছেন। খুব স্বাভাবিক ভাবেই দীর্ঘদিনে ব্যয়বহুল চিকিৎসা চালিয়ে নেওয়া অসম্ভব হয়ে পড়ছে। তাই বলে মা বাঁ’ চ’ বে না! চিকিৎসা না করিয়ে হার মানবে মৃ’ ‘ত্যু’ র কাছে!’

না, মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করে হাসনাতের পাশে দাড়িয়েছে তার সহপাঠীরা। আয়োজন করেছে এক উন্মুক্ত চিত্র প্রদর্শনীর। যেখানে স্থান পেয়েছে চিত্রকর্ম, ক্রাফট, পারফরম্যান্স আর্ট ও ইন্সটলেশন আর্ট। গত শুক্রবার থেকেই এই আয়োজন চলছে। সকাল ৭ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ অব্দি চলে। যার থেকে প্রতিদিন প্রায় ১০ হাজারের মত টাকা আসে। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোনো সহযোগিতা এখনো না মিললেও শিক্ষকরা ব্যক্তিগতভাবে পাশে দাঁড়িয়েছেন।

তাতেও পুরোটা সামলে উঠতে হিমসিম খেতে হচ্ছে হাসনাতের পরিবারের। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দেনা পরিশোধের চাপ তো রয়েছেই। এমন পরিস্থিতিতে হাসনাতের বন্ধুদের রয়েছে সকলের কাছে মানবিক আবেদন। একজন মাকে বাঁচাতে সকলের সাহায্য প্রার্থী আজ অসহায় পরিবারটি। তাই এই মানবিক উদ্যোগটির সামিল হতে পারেন আপনারাও। বাড়িয়ে দিতে পারেন আপনাদের সাহায্যের হাত। প্রয়োজনে যোগাযোগ করতে পারেন ০১৬২৮৫৮৬২৩১ এবং ০১৬২৮৫৮৬২৩১ এই নম্বরগুলোতে। পাশে থাকুন মানবিকতার, পাশে থাকুন একজন মায়ের।

ছবি – জীবন আহমেদ

Reply