‘সাম্প্রদায়িক শক্তি বিজেপি’, রুখতে এলাকায় মন্দিরের দ্বারোদঘাটন জাভেদ খানের…

রাজ্যে শক্তি বাড়িয়েছে বিজেপি। একুশের ভোটের আগে বাড়ছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতাদের যাতায়াত। তৈরি হয়েছে গেরুয়ার পঞ্চ পাণ্ডবের দল। অমিত শাহের টার্গেট ২০০ আসনের। কিন্তু রাজ্যের প্রধান বিরোধী রাজনৈতিক শক্তিকে আদতে বিরোধী নয় সবসময়েই সাম্প্রদায়িক শক্তি হিসাবে দেখছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। প্রতি ক্ষেত্রেই তাই সাম্প্রদায়িক সম্প্রিতির ছবি তুলে ধরার চেষ্টা করে তাঁরা।

পুজো মিটতে না মিটতেই পুজো দিয়ে ভোটের প্রস্তুতি শুরু। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দেখানো পথে হেঁটে এবার নিজের তৈরি মন্দিরে দোয়া করলেন জাভেদ খান। বললেন বিজেপি বিনাশ হোক। সঙ্গে ছিলেন মালা রায় , ব্রাত্য বসুও। করলেন মন্দিরের দ্বারোঘাটন। জাভেদ খান বলেন , ‘আমরা সবসময়েই বাংলার সংস্কৃতিকে ধরে রাখার চেষ্টা করি। সেই চেষ্টাই আবার করলাম। মন্দিরের দ্বারোদঘাটন একটা উপলক্ষ্য মাত্র কিন্তু আদতে আমরা মানুষের মধ্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি গড়ে দিতে চাই।’

মালা রায় বলেন, ‘ধর্মের উপরে উঠে মানবতার কথা বলাই আমাদের মূল উদ্দেশ্য। নন্দীগ্রাম হোক কিংবা সিঙ্গুর। চৌরঙ্গী হোক বা চৌবাগা,এই কঠিন সময়ে আমাদের সাম্প্রদায়িক ভাঙন রুখতে হবে। যেটা বিজেপি চেষ্টা করছে অনবরত। সেটা আমরা হতে দিতে পারি না। সেই জন্যই এই মন্দিরের দ্বারোদঘাটন। আমরা সবাই মিলে বাংলাকে স্বাভাবিক রাখব। এটাই উদ্দেশ্য।’ ব্রাত্য বসু বলেন , ‘সিএএ থেকে এনআরসি বিজেপির সাম্প্রদায়িক রাজনীতি রুখে বাংলা সংস্কৃতি রক্ষাই মূলত উদ্দেশ্য।’

পুজো মিটতেই যেমন ঝাঁপিয়ে পড়েছে বিজেপি, অন্যদিকে থেমে নেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। সূত্রের খবর অনুযায়ী, বিজেপির মোকাবিলায় পরিকল্পনাও ছকে ফেলেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। আগামী ২২ নভেম্বর থেকে রাজ্যে পরপর ৬০০ সভা করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। তৃণমূল সূত্রে খবর সভা করা হবে ২৯৪ টি বিধানসভা কেন্দ্রেই। একদিকে যেমন লিফলেট বিতরণ করা হবে, করা হবে জনসভা। তা ছাড়াও কমিউনিটি রেডিও প্রচারও চালানো হবে। সেখানে তুলে ধরা হবে তৃণমূলের সাফল্যের কথা। শুধু বাংলা ভাষাতেই নয়, নেপালি, সাঁওতালি, তেলেগু, ইংরেজি, হিন্দি এবং রাজবংশীতে। টার্গেট হল রাজ্যের সব মানুষের কাছে পৌঁছনো।

গতমাস থেকেই তৃণমূল বিজেপিকে বিপর্যের তকমা দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার শুরু করেছে। সেখানে স্লোগান হল, নিজেকে বিজেপির থেকে সুরক্ষিত চিহ্নিত করুন। এবার তাদের নতুন স্লোগান হতে যাচ্ছে বাংলাকে বিজেপির থেকে বাঁচান। এই স্লোগান দিয়ে সভা শুরু করা হচ্ছে পশ্চিম মেদিনীপুর, পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম, বাঁকুড়ায়।

Reply