মিম ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান, আমল দিচ্ছে না ওয়াইসির দল

আসাদউদ্দিন ওয়াইসি-র ‘অল ইন্ডিয়া মজলিসে ইত্তেহাদুল মুসলিমিন’ (মিম) ছেড়ে এ বার তৃণমূলে যোগ দিলেন একাধিক নেতা। তৃণমূলের দাবি, সোমবার যাঁরা দলে যোগ দিয়েছেন, তার মধ্যে এ রাজ্যে মিম-এর সংগঠন তৈরির দায়িত্বে থাকা নেতাও রয়েছেন। ওয়াসির দল যদিও সে দাবি উড়িয়ে দিয়েছে। তাদের পাল্টা দাবি, যাঁরা তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন, তাঁদের সঙ্গে মিমের কোনও যোগ ছিল না।

এ দিন তৃণমূল ভবনে রাজ্যের মন্ত্রী ব্রাত্য বসুর উপস্থিতিতে মিম থেকে আসা ওই নেতাদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেওয়া হয়। ব্রাত্য দাবি করেন, মিম যাঁদেরকে নিয়ে পশ্চিমবঙ্গে সংগঠন করতে চাইছিল, আনোয়ার হোসেন পাশা তাঁদের অন্যতম। তাঁর হাতেই এ রাজ্যে সংগঠন গড়ে তোলার দায়িত্ব ছিল। ব্রাত্য জানান, তৃণমূল যে সর্বধর্ম সমন্বয়ের নীতি নিয়ে এ রাজ্যে চলে, হিংসা ও বিভাজনকে প্রশ্রয় দেয় না, শান্তি ও সম্প্রীতির পথে চলে, সেই পথের উপর বিশ্বাস রেখেই আনোয়ার তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন।

আনোয়ারও প্রায় একই সুরে জানিয়েছেন, তৃণমূল এ রাজ্যে সব ধর্মকে সমান চোখে দেখে। তারা পুরোহিতের সঙ্গে ইমামকেও ভাতা দেয়। তৃণমূল কোনও বিভাজন করে না। সে কারণেই তাঁরা তৃণমূলে যোগ দিলেন। মিম ছেড়ে কেন তৃণমূলে যোগ দিলেন? ব্যাখ্যায় আনোয়ার জানান, বিহারে মিম ধর্মনিরপেক্ষ ভোটকে ভাগ করে বিজেপির সুবিধা করেছে। এ রাজ্যের নির্বাচনে যাতে সেই ঘটনা আর না ঘটে তাই তাঁরা তৃণমূলে চলে এসেছেন।

যদিও মিমের এ রাজ্যের মুখপাত্র আসিম ওয়াকারের দাবি, যাঁরা এ দিন তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন তাঁদের সঙ্গে তাঁর দলের কোনও যোগ নেই। আসিমের কথায়, ‘‘আমাদের দলে অনেক কর্মকর্তা রয়েছেন। যাঁরা তৃণমূলে গিয়েছেন, তাঁদের সঙ্গে মিমের কোনও যোগ নেই। আমি তাঁদের চিনি না।’’ আসিমের পাল্টা অভিযোগ, তৃণমূল ‘ষড়যন্ত্র’ করে আগে থেকে তাঁদের দলে বেশ কিছু লোককে ‘ঢুকিয়ে দিয়েছে’। ভোটের আগে তাঁদেরকেই তৃণমূলে নিয়ে ‘সস্তার রাজনীতি’ করছে।

Reply