ঘোর রহস্য! ১০০০ বছরের সন্ন্যাসীর দেহ ভারতের এই মন্দিরে!

একাদশ শতকের খ্যাতনামা বৈষ্ণব সন্ত রামানুজাচার্যকে সশরীরে দেখতে চান? আপনার জন্য খোলা রয়েছে তামিলনাডুর শ্রীরঙ্গমের রঙ্গনাথস্বামী মন্দিরের দরজা। প্রায় হাজার বছর ধরে এই মন্দিরে সংরক্ষিত রয়েছে রামানুজাচার্যের নশ্বর শরীর।

শ্রী রঙ্গনাথস্বামী মন্দির কমপ্লেক্সেই রামানুজাচার্যের উদ্দেশে নিবেদিত একটি মন্দির রয়েছে আর সেখানেই ‘মমি’ করে রাখা রয়েছে এই বিখ্যাত সন্তের দেহ। সেই দেহকেই মূর্তি জ্ঞানে পুজো দেন ভক্তরা।

১৫৫ একর জুড়ে ছড়ানো রঙ্গনাথস্বামী মন্দির কমপ্লেক্সে প্রায় ৫০টি মন্দির রয়েছে। রয়েছে ২১টি মিনার ও ৩৯টি প্যাভেলিয়ন। একদিক থেকে দেখলে এটি যেন একটি ‘মন্দির নগরী’। এখানে প্রবেশ করলে খুলে যায় মধ্যযুগের দাক্ষিণাত্যের সদর দরজা।

স’ঙ্গম আমলে অর্থাৎ খ্রিস্টীয় প্রথম থেকে চতুর্থ শতকের মধ্যে গড়ে ওঠে এই মন্দির। দক্ষিণ ভারতের বৈষ্ণব আন্দোলনের পীঠস্থান হয়ে ওঠে শ্রী রঙ্গনাথস্বামী মন্দির।

কিংবদন্তি থেকে জানা যায়, নশ্বর দেহ ত্যাগের সময় সমাসীন হলে রামানুজের ভক্তরা তাঁকে আরও কয়েক দিন থেকে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। রামানুজ আরও তিন দিন থেকে যেতে রাজি হন। কিন্তু ভক্তরা তা মানতে চাননি। তাই তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করার পরেও তাঁর দেহ অবিকৃত থেকে যায়। কোনও রাসায়নিক ছাড়াই তাঁর দেহ মমিতে পরিণত হয়। যে অবস্থায় তিনি দেহ ত্যাগ করেছিলেন, সেই অবস্থাতেই এই মূর্তি অধিষ্ঠান করছে। বছরে দু’বার তাঁর নশ্বর শরীরে কর্পূর ও কুঙ্কুম লেপন করা হয়। গত ৮৮০ বছর ধরে এই প্রথা পালিত হয়ে আসছে।

Reply