এবার ভোট করবে দিল্লির দাদারা, বুথে রাজ্য পুলিশের নো এন্ট্রি’ : দিলীপ ঘোষ

বাংলায় বিধানসভা নির্বাচনের সময় কালে কেন্দ্রীয় বাহিনীর থাকবে কিনা সেই বিষয়ে আবারো জল্পনা তৈরি করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। মঙ্গলবার হুগলির জিরাটে এক জনসভায় যোগদান করেন দিলীপ।

সেখানে গিয়ে তিনি হুংকার দিয়ে বলেন,” ভোটের সময় আমাদের মনোনয়নপত্র জমা দিতে দেয়নি। যেখানে মনোনয়ন দিতে পেরেছি সেখানে জিতেছি। কিন্তু জেনে রাখুন, এই ভোটটা দিল্লির দাদারা করাবে, দিদিদের দিয়ে আর হবে না”।

রাজ্য পুলিশের জন্য প্রতিটি বুথে বুথে “নো এন্ট্রি” বোর্ড লাগানোর কথা বলে দিলীপ ঘোষ। এই নিয়ে দিলীপ ঘোষ কটাক্ষ করে বলেন,” বুথে ‘‌নো এন্ট্রি’‌ বোর্ড লাগিয়ে আমরা পুলিশকে বলব, দাদা ১০০ মিটার দূরে গাছের তলায় চেয়ার নিয়ে বসুন।

দিল্লির পুলিশ এসে ভোট সামলাবে”। সভায় উপস্থিত বিজেপি কর্মী ও সমর্থকদের উদ্দেশে তিনি বলেন,”চিন্তার কোনও কারণ নেই। ভোট হবে আর সেই ভোটে বিজেপি জিতবে।”

এ মাসের প্রথমদিকে রাজ্য সফরে এসেছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এসে তিনি এ রাজ্যে বিজেপির জয় লাভের জন্য ২০০ টি আসন নির্ধারিত করে দিয়ে যান।

তাঁরই মতন আশাবাদী দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন,” ৭টা বিধানসভাতেই জিতবে বিজেপি। আমরা এখান থেকে সাতজন বিধায়ককে বিধানসভায় পাঠাব।”

দিলীপ ঘোষের অভিযোগ,”আশুতোষ মুখোপাধ্যায়, ঋষি অরবিন্দ, রামমোহন রায়ের হুগলি আজ বালি চো’র, চাল চো’র, পাথর চো’র, কয়লা চো’রে ভরে গিয়েছে”।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নাকি ম্যাজিক জানেন। একথা বলে দিলীপ ঘোষ কটাক্ষ করে বলেন,” টাকার আলু ৪৫ টাকা হয়ে গিয়েছে। ২ টাকার পেঁয়াজকে ১০০ টাকা করে দিয়েছে। এই ম্যা’জি’ক একমাত্র দিদিমণিই করতে পারেন।

আর এই ৪০ টাকা, ৯৮ টাকা যাচ্ছে কালীঘাটে। আবার তিনি নরেন্দ্র মোদীকে দোষ দিচ্ছেন। মোদী আলু চাষ করেন নাকি?‌” একইসাথে তার প্রশ্ন,”হুগলিতে ‘‌সবুজদ্বীপ’‌ নামে এক প্রকল্প হওয়ার কথা ছিল। তা কি হয়েছে?‌ নাকি টাকা এসেছে আর দিদির ভাইরা মিলে খেয়ে নিয়েছে!‌”

Reply