“ভদ্রলোকেরা তৃণমূল করে না”, শুভেন্দুর পদত্যাগ নিয়ে কটাক্ষ দিলীপের

শুভেন্দু অধিকারী রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে রাজনৈতিক মহলে চাপানউতোর চলছিল। এবার সকল জল্পনার অবসান ঘটিয়ে মন্ত্রিত্ব পদ ত্যাগ করলেন শুভেন্দু।

এইচআরবিসি-র চেয়ারম্যান পদ ত্যাগ করার পরের দিনই জেড ক্যাটাগরি নিরাপত্তা ত্যাগ করেছিলেন তিনি। শুক্রবার বেলা বাড়তেই নবান্নে গিয়ে ইস্তফা পত্র জমা দেন শুভেন্দু অধিকারী। পদত্যাগের পত্র ইতিমধ্যে রাজ্যপাল এবং মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পৌঁছে গিয়েছে। মন্ত্রিত্ব ছাড়লেও বিধায়ক পদে এখনো রয়েছেন তিনি।

শনিবার শুভেন্দু অধিকারীর দিল্লি যাওয়া নিয়ে জল্পনা চলছে। তবে তার ঘনিষ্ঠ মহলের দাবি, এখনই দিল্লি যাওয়ার কোনো পরিকল্পনা নেই শুভেন্দু অধিকারীর। তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় শুভেন্দু অধিকারী কে বিভিন্নভাবে দলে রাখতে চেষ্টা করেছিলেন।

এদিন তিনি বলেন,”আমরা চেষ্টা করে চলেছি। শুভেন্দু এখনও দল ছাড়েননি। মন্ত্রিত্ব ছাড়াটা তাঁর ব্যক্তিগত বিষয়। আমি কিছু বলতে পারব না।” শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে সৌগত রায় আবার কথা বলবেন কিনা সে বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে সৌগত রায় জানান,” বললে নিশ্চয় বলব। আমরা হাল ছাড়ছি না”।

শুভেন্দুর মন্ত্রিত্ব ত্যাগ করা নিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন,”তৃণমূল তো সার্কাস পার্টি। মালিক আছে একজনই। আর বাকিরা চাকর। শুভেন্দু অধিকারীকে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি।

নিশ্চয় তাঁকে আমরা জায়গা দেব। তৃণমূলে আসলে কোনও ভদ্রলোকই থাকতে পারেন না।” দিলীপ ঘোষ আরো বলেন,”আমাদের সাংসদ বলেছেন, তৃণমূলের পাঁচ সাংসদ খুব তাড়াতাড়ি বিজেপিতে আসবে। আরও বহু নেতা আছেন লাইনে। মিহির গোস্বামী দিল্লি চলে গিয়েছেন বিজেপিতে যোগ দিতে। তৃণমূলের সঙ্গে কেউ থাকবে না”।

এদিন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী বলেন,”শুভেন্দু অধিকারীর মন্ত্রিত্ব ত্যাগ তৃণমূলের কাছে অশনি সংকেত। মমতার উত্থানের পেছনে অধিকারী পরিবারের ভূমিকা ভুলে গেলে চলবে না।

একসময় অন্য দল ভাঙাতেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ নিজের দলের ভাঙন দেখুন।” সূত্রের খবর, সাংবাদিক বৈঠকে নিজের রাজনৈতিক ভবিষ্যত নিয়েও সবটাই জানাতে পারেন শুভেন্দু অধিকারী। তাঁর পদত্যাগ পত্রে লেখা রয়েছে,”মানুষের সেবা করার সুযোগ দেওয়ার জন্যে ধন্যবাদ।”

Reply