বরফ গলাতে ফের শুভেন্দুর সঙ্গে বৈঠকের ইঙ্গিত সৌগতের

ইতিমধ্যে মন্ত্রিত্ব ছেড়ে বেরিয়ে গিয়েছেন শুভেন্দু। একাধিক পদ থেকেও দিয়েছেন ইস্তফা। রাজনৈতিকমহলের মতে, যেভাবে শুভেন্দু চলছেন তাতে গেরুয়া শিবিরের দিকে যোগের ঝোঁক বাড়ছে। এমনকি নতুন দলও তৈরি করতে পারেন বলে কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে।

যদিও তৃণমূল বলছেন, এখন দলেই রয়েছেন শুভেন্দু। মন্ত্রিত্ব থেকে ইস্তফা মানেই দল ছেড়ে অন্য দলে যোগদান নয়। ফলে তাঁকে নিয়েই এখন রাজনৈতিকমহলে জোর জল্পনা। আর এই পরিস্থিতিতে ফের একবার বরফ গলানোর চেষ্টা করা হবে বলে ইঙ্গিত দলেরই বর্ষীয়ান সাংসদ সৌগত রায়ের।

এক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সৌগত রায় জানিয়েছেন, ‘রাজনীতি, ধৈর্য্য, অধ্যাবসায় কোনও বিষয়ে লাইন টানা যায় না। শুভেন্দু অধিকারীর ক্ষেত্রেও একই ব্যাপার। ওঁর সঙ্গে আবার আলোচনা-বৈঠক হতেই পারে বলে সংবাদমাধ্যমে ইঙ্গিত সৌগতের।

এই বিষয়ে দলের অনুমোদন রয়েছে কিনা সেই বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে ওই সংবাদমাধ্যমকে তৃণমূল সাংসদ জানিয়েছেন, যা করছি দলের অনুমোদন নিয়েই করছি।’ তবে সূত্রের খবর, আজ সোমবার কলকাতায় আসার কথা ছিল শুভেন্দুর। তবে আজ আসছেন না বলেই খবর। এদিন সকালেই নন্দীগ্রামে যান শুভেন্দু। সেখানে রাশ উৎসবের সূচনা করেন তিনি।

উল্লেখ্য, শুক্রবার মন্ত্রিত্ব থেকে পদত্যাগ করেন শুভেন্দু অধিকারী। মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখে জানান তিনি। ই-মেলে পদত্যাগপত্রের কপি পাঠান রাজ্যপালকেও। শুভেন্দুর পদত্যাগপত্রের প্রাপ্তি স্বীকার করেন রাজ্যপাল। ‘রাজ্যের মানুষের সেবার সুযোগ দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ’ চিঠিতে লেখেন শুভেন্দু।

এরপরই তৃণমূলের তরফে সৌগত রায় বলেন, ‘‘এখনও বিধায়ক পদ থেকে পদত্যাগ করেননি উনি। দলের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকেও পদত্যাগ করেননি। যত ক্ষণ বিধায়ক আছেন, তত ক্ষণ দলের সদস্য উনি। মন্ত্রিত্ব ছাড়া একান্তই ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত ওঁর। আমি এতে দুঃখিত। ওঁর সঙ্গে কথা বলে মনে হয়েছে, দল ছাড়বেন না। আমি এখনও আশাবাদী। যত ক্ষণ দলে আছেন, আমি আশা করব এবং চেষ্টা চালিয়ে যাব ওঁকে দলে রাখার।’

মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর গত শনিবার গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক ছিল শুভেন্দুর সঙ্গে। কিন্তু সৌগত রায় বাংলা এক সংবাদমাধ্যমকে জানান, শিশির অধিকারীর সঙ্গে তাঁর ফোনে কথা হয়। কিন্তু অসুস্থ শুভেন্দুর মা। তাই কলকাতায় আসতে পারছেন না প্রাক্তন পরিবহণ মন্ত্রী।

তবে এর মধ্যে যদিও তৃণমূলের তরফে নাম না করে বারবার শুভেন্দুকে আক্রমণ করা হচ্ছে। এমনকি খোদঃ অভিষেকও নাম না করে আক্রমণ করেছেন শুভেন্দুকে। এই অবস্থায় আগামিদিনে শুভেন্দুর সঙ্গে সৌগত রায়ের বৈঠক হয় কিনা সেটাই এখন দেখার।

Reply