আপার প্রাইমারিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া দ্রুত শেষ করার দাবি এবিভিপি-র

স্কুলে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে রাজ্য সরকারের ভূমিকায় যারপরনাই ক্ষুব্ধ বিজেপির ছাত্র সংগঠন এবিভিপি। সংগঠনের নেতাদের অভিযোগ, শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে রাজ্য সরকারের সঠিক পরিকল্পনার অভাবে ছাত্র-ছাত্রীদের বছরের পর বছর ধরে সময় নষ্ট হচ্ছে। অনেকেরই পরীক্ষায় বসার বয়সের উর্ধ্বসীমা পার হয়ে গিয়েছে। এমনকী অনেকে হতাশাগ্রস্ত হয়ে অন্য উপার্জনের পথ খুঁজে নিতেও বাধ্য হচ্ছেন বলে দাবি এবিভিপির।

এক এবিভিপি নেতা বলেন, ‘কোনও কাজ অসম্মানের নয়, কিন্তু একজন শিক্ষিত ছেলে বা মেয়েকে যখন তাদের যোগ্যতা অনুযায়ী কাজ দেওয়া যায় না তখন বুঝতে হয় সরকার ঠিকঠাক চলছে না। স্কুল কলেজগুলোতে কয়েক হাজারের বেশি শূন্যপদ রয়েছে।কিন্তু এখনও নিয়োগ প্রক্রিয়া থমকে রয়েছে। মাননীয়ার কাছে প্রশ্ন শিক্ষিত যুবকরা কি তাদের পড়াশোনা শেষে মাটিকাটা কাজ করবেন?’৷

শিক্ষকরা হলেন সমাজ গড়ার কারিগর, সরকারি স্কুলে যদি শিক্ষক নিয়োগ না হয় তাহলে গরিবের ছেলে মেয়ে শিক্ষা পাবে না। কোথায় যাবে তারা? মাননীয়া কি পশ্চিমবঙ্গের ছেলেমেয়েরা শিক্ষিত হোক এটা চায়না?

এই মর্মে, আপার প্রাইমারি চাকরি প্রার্থীরা নিজেদের ন্যায্য দাবিতে দীর্ঘ সময় ধরে সারা বাংলার রাজপথে নেমে চলেছে, তখনই তাদের উপর নেমে এসেছে প্রশাসনের কালো হাত। সুতরাং আজ কলকাতার রাজপথে আপার প্রাইমারিতে আন্দোলনরত যে সকল চাকুরীজীবি প্রার্থীদের গ্রেফতার করা হয়েছে । ABVP এর স্পষ্ট দাবি, অতি দ্রুত তাদের নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে। একইসঙ্গে শূন্য পদগুলিতে দ্রুত তালিকাভুক্ত চাকরি প্রার্থীদের নিয়োগ করতে হবে।

Reply