পে কমিশনের ৪৮ মাসের এরিয়ার কোথায় গেল, ডিএ ঘোষণার পর মুখ্যমন্ত্রীকে প্রশ্ন দিলীপের

রাজ্য সরকারি কর্মীদের জন্য মহার্ঘ ভাতা (ডিএ) ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ২০২১-এর জানুয়ারিতে ৩ শতাংশ ডিএ দেওয়া হবে বলে বৃহস্পতিবার জানান তিনি। মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণাকে কটাক্ষ করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

এদিন দিলীপ ঘোষ বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী অনেক প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু কটা রাখেন? পে কমিশনের ৪৮ মাসের এরিয়ার কোথায় গেল? আমি ওনার নাম দিয়েছি প্রতিশ্রুতি দিদি।”

বৃহস্পতিবার বিকেলে নবান্নে তৃণমূল প্রভাবিত কর্মচারী সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠকে ডিএ ঘোষণার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আর্থিক অনটনের মধ্যেও যতটা পারলাম দিলাম।” মুখ্যমন্ত্রী জানান, এই ৩ শতাংশ ডিএ দিতে রাজ্য সরকারের অতিরিক্ত খরচ হবে ২ হাজার কোটি টাকা।

প্রসঙ্গত, ডিএ ইস্যুতে বিভিন্ন কর্মচারী সংগঠনের সঙ্গে রাজ্য সরকারের টানাপড়েন চলছে কয়েক বছর ধরেই। রাজ্য প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল (স্যাট) থেকে হাইকোর্ট, বারবার মামলা গড়িয়েছে নানা এজলাসে। কিন্তু টানাপড়েন মেটেনি। পরে রাজ্য সরকার ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ কার্যকর করার কথা ঘোষণা করে। কিন্তু সে ঘোষণাও ছিল ডিএ-হীন। তাই বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী ৩ শতাংশ ডিএ ঘোষণা করায় বৈঠকে উপস্থিত ফেডারেশন নেতারা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন।

বিজেপি-র ছাতার তলায় থাকা সংগঠন রাজ্য সরকারি কর্মচারী সংগঠনের রাজ্য আহ্বায়ক দেবাশিস শীল বলেছেন, ‘‘সামনে নির্বাচন বলে আমাদের ভিক্ষা দেওয়া হল। গত এক বছর ধরে কোনও ডিএ দেওয়া হয়নি। ২০২১-এর জানুয়ারিতে গিয়ে বকেয়া পৌঁছে যাবে ২৪ শতাংশে। সুতরাং ৩ শতাংশ ডিএ ঘোষণা করা আসলে কর্মীদের সঙ্গে তামাশা ছাড়া আর কিছু নয়।’’

ওদিকে দিল্লিতে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীররঞ্জন চৌধুরী বলেন, “ভোটের মুখে ওনার রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের কথা মনে পড়েছে। ভোটে কারচুপি করতে এদের সাহায্য লাগবে। তাই এখন থেকে ম্যানেজ করতে নেমেছেন মমতা।”

Reply