“এতদিন তো সকলকে দেখলেন, বিজেপিকে একবার সুযোগ দিন, সোনার বাংলা গড়ব”,বললেন অমিত শাহ

অমিত শাহের রোড শোতে বিপুল জনসমাগম। তাই দেখে যথেষ্ট খুশি হয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। আবেগে আপ্লুত হয়ে তিনি বলেন,”অনেক রোড শো করেছি, এরকম রোড শো জীবনে দেখিনি।” অনুব্রত মণ্ডলের এলাকায় রোড শো করেন অমিত শাহ। রোড শো শুরু হয়,বোলপুর ডাকবাংলো মোড় থেকে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের রোড শোতে এক কিলোমিটার পরিক্রমা করা হয়। তাতেই মানুষের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। বাউল গান আর ঢাকের আওয়াজে কার্যত উৎসবমুখর পরিবেশের রূপ নেয় বীরভূম।

বহু জায়গায় অমিত শাহের উপর পুষ্পবৃষ্টি করা হয়। বিজেপির প্রতি মানুষের ভালোবাসা দেখে আনন্দে আপ্লুত হয়ে অমিত শাহ বলেন,”বোলপুরের এই রোড শো ঐতিহাসিক। এটা মোদির প্রতি ভালবাসার প্রমাণ। বোলপুরের মানুষের কাছে আমি কৃতজ্ঞ”।

এদিনের রোড শো থেকে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন অমিত শাহ। তিনি বলেন,”তোলাবাজি বন্ধে পরিবর্তন দরকার। বিজেপি বাংলার উন্নয়ন করবে। রোড শো ঐতিহাসিক। এরকম র‌্যালি আগে দেখিনি।

মোদিজির প্রতি ভালবাসা দেখছি। হিংসা বদলে বদল জরুরি। ভাইপোর দাদাগিরি বন্ধ হবে।” তিনি মনে করেন, বাংলায় উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন বিজেপিকে। তিনি বলেন,”যেখানে বিজেপির শাসন, সেখানেই উন্নয়ন। উন্নয়নের রাস্তা থেকে সরে গিয়েছে বাংলা”।

একুশের বিধানসভা নির্বাচনে মানুষ যাতে বিজেপিকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করে তার জন্য অমিত শাহ বলেন,”এতদিন তো কংগ্রেস, কমিউনিস্ট, তৃণমূলকে দেখলেন। কিন্তু তাতে কি অবস্থার কোনও বদল হয়েছে? বিজেপিকে একটি বার সুযোগ দিন, সোনার বাংলা গড়ব।”

কলকাতা থেকে হেলিকপ্টারে করে বোলপুর পৌঁছানোর সময় অমিত শাহকে আহ্বান জানাতে উপস্থিত হন অরবিন্দ মেনন, অনুপম হাজরা, লকেট চট্টোপাধ্যায়, রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়, রাহুল সিনহা সহ বিজেপির আরো বেশকিছু নেতা-নেত্রীরা।

বোলপুরে পৌঁছে সর্বপ্রথমে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ রবীন্দ্রনাথের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করেন। উপাসনা গৃহ, সংগীত ভবন সবটাই ঘুরে দেখেন তিনি।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রতি শ্রদ্ধা এবং ভক্তি জানিয়ে অমিত শাহ বলেন,”আমি মনে করি গুরুদেবকে পুরস্কার দিয়ে আসলে নিজেকে সম্মানিত করেছে নোবেল, উনি সংকীর্ণতার উর্ধ্বে ওঠেন, তাঁর সাহিত্য গোটা দেশকে সমৃদ্ধ করেছে মাথা উঁচু হয়েছে দেশের।”

এরপর শিব মন্দিরে পুজো দিয়ে বোলপুরের এক বাউল সম্প্রদায়ের ঘরে মধ্যাহ্নভোজন সারেন তিনি। মেনুতে ছিল ভাত, মুগের ডাল, আলু ভাজা, বেগুন ভাজা, পটল ভাজা, আলুপোস্ত, পালং শাকের তরকারি, স্যালাড, পায়েস, টক দইয়ের সঙ্গে শাহি মেনুতে ছিল নলেন গুড়ের রসগোল্লা।

Reply