‘বিজেপি কে ঝাঁঝরা করে দেব’ পাহাড় থেকে হুঙ্কার বিমলের

পাহাড়ে ফিরে বিমল গুরুং বিজেপিকে হুশিয়ারি দিয়ে বললেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে হাত মিলিয়ে বিজেপিকে ঝাঁজরা করে দেব”।

রবিবার দার্জিলিংয়ের চকবাজারের মোটরস্ট্যান্ড এলাকায় আয়োজিত জনসভাতে বিমল গুরুং অমিত শাহকে নিশানা করেন অমিত শাহ কে, এমনকি রেহাই পাননি কৈলাস বিজয়বর্গীয় ও।

বিমল গুরুং এদিন সভা থেকে প্রতিশ্রুতি দেন যে, পাহাড়ের তিনটি বিধানসভা আসনে তৃণমূলকে বিপুল ভোটে জয়ী করবেন তিনি।

রবিবার গুরুং শিলিগুড়ি থেকে দার্জিলিং যাওয়ার পথে পাহাড়ের বাঁকে বাঁকে তাকে তার অনুগামীরা স্বাগত জানান । প্রচুর মানুষ ভিড় জমায় তার জন্য। সুকনায় একদফা সংবর্ধনা জ্ঞাপন করার পর গারিধুরা, কার্শিয়াং, ঘুম, সোনাদা, টুং, জোরবাংলো এলাকায় দফায় দফায় গাড়ি থামিয়ে তাকে শুভেচ্ছা জানানো হয়।

রবিবার দার্জিলিংয়ের মোটর স্ট্যান্ড এলাকায়, যেখানে জনসভার মঞ্চ করা হয়েছিল সেখানে পাহাড়ের বিভিন্ন এলাকার মানুষ ভোর ছ’টা থেকেই জমায়েত করতে শুরু করে।

শুধু তাই নয়, জনসভার আনুষ্ঠানিক সূচি ঘোষণা করা ছিল সকাল দশটায় তার অনেক আগে থেকেই দীর্ঘদিন পর তাঁদের নেতাকে চাক্ষুষ করতে হাজির হয়েছিলেন দার্জিলিং সহ পার্শ্ববর্তী এলাকার বহু মানুষ।

এদিন জনসভা থেকে বিমল তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা বিভিন্ন অভিযোগের খোলা জবাব দেন। জনশ্রুতি, তাঁর নেপালসহ দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জায়গায় হোটেল ক্যা’সি’নো রয়েছে।

তিনি বলেন, “আমার ছেলে তিন বছর আমার সঙ্গে অজ্ঞাতবাসে ছিলেন। আমাকে জিজ্ঞাসা করত, তোমার এত কিছু আছে শুনেছি, তবে সত্যিই যদি তোমার সম্পত্তি থেকে থাকে তাহলে সেখানে আমরা যেতে পারি। আমি কিছু কিছু বলতে পারিনি।”

পাশাপাশি বিনয় তামাং অনিত থাপাদের খোলা চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন, ক্ষমতা থাকলে মিথ্যে কথা না বলে সতেরো আঠারোটা আসন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জিতিয়ে দেখানোর।

জিটিএ যত কাজ হয়েছে তার মধ্যে দুর্নী’তি হয়েছে বলে ফের একবার অভিযোগ তুলে প্রতিটি কাজের ক্ষেত্রে আরটিআই করবেন বলে হু’মকি দেন। নাম না করেই বিমল গুরুং এদিন বলেন, “একসময় যারা স্কুল থেকে ল্যাপটপ চু”রি করত তাঁরাও এখন জিটিএ চালাচ্ছে।”

Reply