মুখ্যমন্ত্রীকে এক লক্ষ “জয় শ্রীরাম” লেখা পোস্টকার্ড পাঠাবে বিজেপি

ভিক্টোরিয়ার আয়োজিত নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্ম বার্ষিকী অনুষ্ঠানে “জয় শ্রীরাম” ধ্বনি ওঠায় উত্তপ্ত রাজ্য রাজনীতি। পুরনো অভ্যাস স্বরূপ মঞ্চে কোনো বক্তব্য না রেখেই মঞ্চ থেকে প্রস্থান করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এরপর থেকেই বঙ্গ রাজনৈতিক মহলের আলোচনার ঝড় ওঠে। সেই আলোচনার মধ্যে নতুন বিতর্ক যোগ করলেন বিজেপি নেতা তজিন্দার সিং বাগ্গা।

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ১২৫ তম জন্মদিন উপলক্ষে শনিবার কলকাতায় এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। প্রথমে নেতাজি ভবন তারপর ন্যাশনাল লাইব্রেরী ঘুরে ভিক্টোরিয়ায় পৌঁছান তিনি।

রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকর এবং রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নেতাজির জন্ম বার্ষিকী মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। সেই মঞ্চে মুখ্যমন্ত্রীকে বক্তব্য পেশ করতে আহ্বান জানানো হলে দর্শকরা “জয় শ্রীরাম” ধ্বনি দিতে থাকে। মেজাজ হারিয়ে প্রতিবাদ করে মঞ্চ থেকে নেমে যান মমতা।

এদিনের মঞ্চে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,”এটা সরকারি অনুষ্ঠান। কোনও রাজনৈতিক সভা নয়। আমন্ত্রণ জানিয়ে বেইজ্জত করা উচিত নয়। তাই আমি কোনও বক্তব্য রাখব না। তবে কলকাতায় এই অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য আমি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।”

রাজ্যের শাসক দলের নেতা-মন্ত্রীরা মনে করেন,নেতাজির জন্ম দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এহেন ধ্বনি দেওয়ায় মুখ্যমন্ত্রীকে অপমান করা হয়েছে। অন্যদিকে বিজেপির দাবি,মানুষ যেমন খুশি স্লোগান তুলতে পারেন। কিন্তু তাতে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে এমন প্রতিক্রিয়া কখনোই কাম্য নয়।

নেতাজির জন্ম দিবস উপলক্ষে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে আবার রাজনৈতিক উত্তাপ বাড়লো। হরিয়ানার স্বাস্থ্যমন্ত্রী অনিল ভিজ কটাক্ষ করে বলেন,”ষাঁড় যেমন লাল রং দেখলে রেগে যায়, জয় শ্রীরাম ধ্বনি শুনলেও মুখ্যমন্ত্রীর একই প্রতিক্রিয়া হয়।” এখানেই শেষ নয়।

বিতর্কের আ’গুন আরো উস্কে দিয়ে বিজেপি নেতা তজিন্দর সিং বাগ্গা টুইট করে প্রশ্ন তোলেন,”দিদি, আপনি জয় শ্রীরাম শুনলেই কেন মেজাজ হারান? আপনার কাছে জয় শ্রীরাম লেখা এক লক্ষ পোস্ট কার্ড পাঠানো হবে।” এরই মাঝে আবার,মধ্যপ্রদেশ বিধানসভার স্পিকার রামেশ্বর শর্মা কটাক্ষ করে মুখ্যমন্ত্রীকে “রামায়ণ” মহাকাব্য উপহার দিয়েছেন।

Reply