রমজান মাসেই ধর্মান্তরিত হয়ে হিন্দু হলেন ২৫০ জন মুসলিম

শুরু হয়ে গিয়েছে পবিত্র রমজান মাস। আর এই মাসেই ধর্মান্তরিত হয়ে হিন্দু হয়ে গেলেন শতাধিক মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ভারতের রাজ্য হরিয়ানার হিসার জেলায়।

বিজেপি শাসিত হরিয়ানার হিসার জেলার বিথমারা গ্রামের ৪০টি পরিবারের ২৫০ জন মানুষ হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেছেন। যারা প্রত্যকেই আগে ইসলাম ধর্মের অনুসারী ছিলেন। গত শুক্রবার এক ৮০ বছরের বৃদ্ধা মহিলার শেষকৃত্য সম্পন্ন হয় হিন্দু রীতি মেনেই। দাহ করা হয় ওই মহিলার দেহ। তারপরেই ওই বিপুল সংখ্যক মানুষ হিন্দু ধর্ম গ্রহন করেন।

হরিয়ানায় এই একই ছবি দেখা গিয়েছিল গত মাসের ১৮ তারিখে। সেদিন ওই রাজ্যের জিন্দ জেলার দানোরা গ্রামের ছয় পরিবারের সদস্যরা হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন। ওই ছয় পরিবারের মোট সদস্য ছিল ৩৫ জন।

ধর্মান্তরিত হয়ে যাওয়া পরিবারগুলির বক্তব্য হচ্ছে তাঁদের সঙ্গে ইসলামের সম্পর্ক ৩০০ বছরের। তার আগে এনাদের পূর্বপুরুষেরা হিন্দু ছিলেন। সম্রাট ঔরঙ্গজেবের সময়কালে বলপূর্বক তাঁদের ধর্মান্তরিত করা হয়। তিন শতাব্দী পরে শুধরে নেওয়া হল সেই ভুল। তবে হিন্দু রেওয়াজ অনুসারে অনেক কিছুই ওই গ্রামগুলিতে জারি ছিল বলে দাবি করেছেন ধর্মান্তরিত হওয়া সকলেই।

যে বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে তাঁর ছেলের নাম সাতবীর। ইনি জানিয়েছেন যে মোঘল সম্রাট ঔরঙ্গজেবের জমানায় এই গ্রামের বাসিন্দাদের ধর্মান্তরিত করে মুসলিম করা হয়েছিল। কিন্তু এই গ্রামে হিন্দু রেওয়াজ অনুসারে সকল প্রকারের উৎসব পালন করা হতো। পুজো-পার্বনেরও আয়োজন করা হতো। কেবলমাত্র সৎকার করা হতো ইসলাম অনুসারে। সেই রেওয়াজ ভেঙে গিয়েছে শুক্রবার। দাহ করা হয়েছে সাতবীরের মায়ের দেহ। একই সঙ্গে ইসলাম ছেড়ে হিন্দু ধর্মের ছায়াতলে এসেছেন ২৫০ জন মুসলিম মানুষ।

এই বিষয়ে হরিয়ানা মুসলিম অয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশানের রাজ্যয সভাপতি হরফুল খান ভাট্টি জানিয়েছেন যে জিন্দ জেলার দানোরা গ্রামের ধর্মান্তরের বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তবে বিথমারা গ্রামের ঘটনা তাঁর জানা নেই। সেই সঙ্গে তাঁর আরও দাবি, “ধর্মান্তরিত হওয়া সকলেই ডোম। ওরা সবাই সরকারি সংরক্ষণের আশায় ধর্মান্তরিত হয়েছে। হিন্দু ডোমদের এসসি পরিচয় দেওয়া হয়। সেই সুবিধা পেতেই ওই সকল ব্যক্তি ইসলাম ত্যাগ করেছেন।”

তথ্যসূত্র: খাসখবর ডটকম

Reply