Thursday , September 23 2021
Breaking News

গালওয়ানে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের এক বছর, কোথায় দাঁড়িয়ে ভারত-চিন সম্পর্ক

নয়াদিল্লি: ২০২০ সালের জুনে গালওয়ান উপত্যকায় (Galwan valley) ভারতীয় সেনা ও লালফৌজের মধ্যে সংঘাত ভারত-চিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের (Bilateral Relations) ইতিহাসের এক নয়া মোড়। চার দশকে প্রথমবার এই দুই দেশের সীমান্ত সংঘর্ষে সৈন্যরা প্রাণ হারিয়েছিল। সেই রক্তক্ষয়ী সংঘাতের এক বছর পরে কিছু সমীকরণ পরিবর্তন হয়েছে তবে উত্তেজনা কমেনি। বরং উভয় দেশের মধ্যে প্রতিযোগিতা বেড়েছে। তা তিনটি ক্ষেত্রে স্পষ্টভাবে দৃশ্যমান।

প্রথমত, ১৩ মাসের দ্বন্দ্ব এবং ১১ দফার আলোচনার ফলাফল তেমন একটা আশাব্যাঞ্জক নয়। উভয় পক্ষই কেবল আংশিকভাবে প্যানগং লেক অঞ্চল ছেড়ে গেছে। পূর্ব লাদাখে (Eastern Ladakh) সেই অস্থিরতা এখনও অব্যাহত রয়েছে এবং উভয় পক্ষ সম্পূর্ণ ভিন্ন লক্ষ্য নিয়ে আলোচনা করতে চায়। ভারত সেনা প্রত্যাহার চায়, তারফলে যুদ্ধের আশঙ্কা ধীরে ধীরে হ্রাস পাবে। তবে চিন (China) তার বিপরীত চায়। তাদের দাবি যুদ্ধের সম্ভাবনা কমে যাক তারপরেই সেনা প্রত্যাহার। চিনের এই জেদের পেছনে চিনা পিপলস লিবারেশন আর্মির কূটনৈতিক কসরত রয়েছে বলে মনে করেন ভারতীয় কূটনীতিকরা।

দ্বিতীয়ত, এই অস্থিরতার কারণে দুই দেশের মধ্যে রাজনৈতিক বিশ্বাসের জায়গা নষ্ট হচ্ছে। যা ভবিষ্যতের আলোচনার উপরও প্রভাব ফেলবে। সংঘাতের আগেও ভারতের কূটনৈতিক বিভাগ চিনের উত্থানকে ভারতের পক্ষে চ্যালেঞ্জ হিসাবে বিবেচনা করেছিল। এগুলি ছাড়াও জরিপগুলি প্রমাণ করেছে যে চিনের প্রতি ভারতীয়দের মনোভাব কখনও খুব ইতিবাচক ছিল না। এটি ধীরে ধীরে আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। ভারত এবং চিন উভয়ই বিশ্বাস করে যে তারা একে অপরকে হুমকির মুখে ফেলেছে।

তৃতীয়ত, ভারতের নীতি নির্ধারক কমিটি যুক্তরাষ্ট্র এবং বহিঃবিশ্বের দেশগুলির সঙ্গে ভারসাম্য রেখে একটি স্পষ্ট অবস্থান নিয়েছে। জানানো হয়েছিল দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে সীমান্ত সমস্যাকে আলাদা করে দেখা সম্ভব নয়। বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর গত মাসেও এই বিষয়টির পুনরাবৃত্তি করেছেন। তিনি বলেছিলেন যে ভারতের শক্তি বাড়ানোর অধিকার রয়েছে। এটিও স্মরণ করিয়ে দিয়েছে যে “সীমান্তে উত্তেজনা এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে সমন্বয় কোনও অবস্থাতেই চলতে পারে না।”

About A..

Check Also

সেই ভয়ঙ্কর সৌরঝড়। -ফাইল ছবি।

আসছে ভয়ঙ্কর সৌরঝড়, ভেঙে পড়তে পারে বিশ্বের ইন্টারনেট যোগাযোগ, অশনিসঙ্কেত গবেষণার

ভয়ঙ্কর সৌরঝড় (‘সোলার স্টর্ম’) আসছে। যার ফলে ভেঙে পড়তে পারে গোটা বিশ্বের যাবতীয় ইন্টারনেট যোগাযোগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *